রাশিয়া ও চীন কাজাখস্তানে ট্রানজিট হয়ে ট্রাকে মাল পরিবহণ আয়োজনের সম্ভাবনা বিবেচনা করবে. এজন্য আলতাইয়ে, যা সহযোগিতার লজিস্টিক কেন্দ্র হবে, দু দেশের প্রতিনিধি দল পৌঁছোবে. সমস্যা হল পরিবহণ ব্যবস্থা বিনিময়ের ব্যাপারে রুশ-চীনী চুক্তি নেই, আর তাছাড়া চীনের গাড়ি কাজাখস্তানের সীমানা পার হতে পারবে না. মাল পরিবহণের বিদ্যমান ব্যবস্থা অতিরিক্ত খরচের দাবি করে. তা রাশিয়ার আন্তর্জাতিক মোটর পরিবহণকারীদের সমিতির পছন্দমতো নয়, এবং তারা জোর দিচ্ছে তাদর যেন চীনা গণপ্রজাতন্ত্রের উরুমচি জেলায় মাল লোডিংয়ের সময় থাকতে দেওয়া হয়. চীনা পক্ষের জন্য চিত্তাকর্ষক বিষয় হল তারা নিজে নিজে স্বতন্ত্রভাবে কাজাখস্তানের ভূভাগে ট্রানজিট হয়ে রাশিয়ার সীমানায় মাল আনতে চায়. উভয় পক্ষের উভয় পক্ষের প্রতিনিধিরা সীমান্ত অঞ্চলে যাবেন এবং আলতাই অঞ্চলে শুল্ক কেন্দ্র অধ্যয়ন করবেন, যেখান থেকে দু দেশকে যুক্ত করা রাস্তা শুরু হয়েছে, জানিয়েছে ইতার-তাস সংবাদ সংস্থা.