মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা নিয়ে যে গুপ্তচর কেলেঙ্কারি শুরু হয়েছে, যারা কিনা বেআইনি ভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থেকে রাশিয়ার জন্য খবর যোগাড় করছিল, তা নিয়ে শুধুমাত্র রাশিয়ার প্রশাসনই বুঝতে না পেরে নির্বাক হয়ে যায় নি, অতলান্তিকের অপর পারেও অনেক সুস্থ বুদ্ধির লোক কিছুই বুঝতে পারছে না."নিউ ইয়র্ক ডেইলী নিউস" পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে যে, যে সমস্ত আদালতের জন্য কাগজ দেখতে পাওয়া গেছে, তাতে নাকি লেখা রয়েছে যে, অভিযুক্তদের কাছ থেকে যে সমস্ত খবর চাওয়া হয়েছিল, তা যে কোন লোকই যে কি না "গোগোল সার্চ ইঞ্জিন" ব্যবহার করতে পারে, সেই জানতে পারে, যেমন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনা নিয়ে অবস্থান, অথবা গত ছরে মস্কো শীর্ষ বৈঠকের আগে রাষ্ট্রপতি ওবামা তাঁর সামনে কি লক্ষ্য স্থির করে এসেছিলেন এই সব. এক নাম উল্লেখ করতে অনিচ্ছুক সরকারি কর্মচারীর কথা উদ্ধৃত করে ওয়াশিংটনের খবরের কাগজ লিখেছে যে, অভিযুক্ত দের দ্বারা একটিও বাস্তবে ক্ষতি করতে পারে এমন খবর পাঠানো হয় নি."ফক্স নিউজ" টেলিভিশন কোম্পানী খুবই ব্যঙ্গ করে মনোযোগ দিয়েছে যে, গ্রেপ্তার যাদের করা হয়েছে, তাদের গুপ্তচর বলে অভিযোগ করা হয় নি, বলা হয়েছে তারা নাকি কালো টাকার কারবার করছিল এবং তারা বিদেশী চর বলে কোথাও তাদের নাম রেজিস্ট্রেশন করে নি!"ওয়াশিংটন পোস্ট" কাগজের মতে এই সব নাম দেওয়া গুপ্তচরদের দেখা সাক্ষাতের বর্ণনা একেবারে কোয়েন ভাই দের নভেল "পড়ার পর পুড়িয়ে ফেলো" তে যেমন লেখা ঠিক তারই ব্যঙ্গ রূপ. যেমন, কেন্দ্র থেকে রুশ গুপ্তচরকে বলে দেওয়া হয়েছে যে সে, রোমে আর একজন অচেনা লোকের সামনে এসে বলবে – "কিছু মনে করবেন না, আমাদের কি ১৯৯৯ সালে মাল্টা দ্বীপে দেখা হয় নি"? অচেনা লোক বলবে পাসওয়ার্ড হিসাবে – "ঠিকই বলেছেন, আমি লা ভ্যালেট দ্বীপে ছিলাম, কিন্তু সেটা ২০০০ এ". তারপর গুপ্তচরকে একটা জাল পাসপোর্ট দেবে. আমেরিকার কাগজ লিখেছে যে, তা স্বত্ত্বেও কিন্তু এই সব অসাধারন সব উদাহরণ সমেত খুবই গোপন ভাবে বহু দিন ধরে লুকিয়ে থাকা রুশ গুপ্তচরদের সম্বন্ধে অভিযোগ আদালতে করা হয়েছে."ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল" এই ঘটনার মধ্য "রকি ও বুলভিনকল" নামের সিনেমার গল্পের ছায়া দেখতে পেয়েছে. তথাকথিত রুশ গুপ্তচরেরা নাকি নিজেদের মধ্যে কথা বলত স্টেশনে একই রকমের ব্যাগ মাটিতে ফেলে তা তুলতে গিয়ে, তারপর "ভ্যানিশিং ইঙ্ক" দিয়ে চিঠি লিখত, যা যে কোন স্কুলের বাচ্চাই কিনতে পারে. আর কেন্দ্রের কাছ থেকে পাওয়া আদেশের সব বাক্য শুনলে "রকি ও বুলভিনকল" গল্পের গুপ্তচর রুশী অ্যাকসেন্টে ভাঙ্গা ইংরাজী বলা বরিস বাদেনভ ও নাতাশা ফাতাল বোধহয় গর্ব বোধ করত বলে কাগজে ব্যঙ্গ করা হয়েছে.ক্লাসিকাল আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা গল্প ও সিনেমার ছায়া দেখতে পেয়েছে এর মধ্যে কানাডার সাংবাদিকেরা. এফ বি আই এর অনুসন্ধানের বিবরণ হলিউডের গুপ্তচর নিয়ে তৈরী সিনেমার মতো, যেখানে অপরাধী গোষ্ঠী দক্ষিণ আমেরিকাতে এবং রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার প্রতিনিধিদের কাছ থেকে থলি ভর্তি টাকা পেতো, এই খবর লিখেছে কানাডার "এডমন্টন জার্নাল".আরও বলে মনোহারি মন্তব্য করেছেন কানাডার সংবাদ মাধ্যমের ইন্টারনেট সাইটের গ্রাহকেরা, তাদের এই বিষয়ে আগ্রহের কারণ বোধগম্য – এফ বি আই ঘোষণা করেছে যে, এই সব গ্রেপ্তার হওয়া লোকেদের মধ্যে কয়েকজনের কাছে বহু দিন আগে মৃত কানাডার লোকেদের নামে জাল পরিচয় পত্র ছিল. কানাডার লোকেরা এর মধ্যে দেখতে পেয়েছেন রুশ লোকেদের কোন অপরাধের জন্য করা গোপন চুক্তি নয়, বরং ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়ের প্রোপাগাণ্ডা আবার চালু করার অপ প্রচেষ্টা – এই খবর উল্লেখ করেছে কে পি ডট রু সাইটে কানাডার "ন্যাশনাল পোস্ট" নামের কাগজের পাঠকেরা. নীচে তার কয়েকটা উদ্ধৃতি দেওয়া হল."সব সেই আগের ঠাণ্ডা যুদ্ধের সময়ের মতোই হচ্ছে, আহারে দেখলে চোখে সহানুভুতির জল আসে, কত নস্টালজিক ব্যাপার... বাস্তবটা খেয়াল করে দেখুন, "আল কায়দা", "তালিবান" বলে জনগনকে ভয় দেখানো হয়েছে এবং সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সার্বিক যুদ্ধের ভয় দেখানো হয়েছে, আর লোকে এতে ভয় পাচ্ছে না, তাই ওই দেখো রুশীরা আসছে... আমি এখনই ভয়ে কাঁপছি"!!!"হে ভগবান, আমি তাও বুঝতাম, যদি রুশীরা এটা কাউবয় বুশের রাষ্ট্রপতি শাসনের সময় তা করত, কিন্তু এখন যখন আমেরিকা মিস্টার ইউটোপিয়াকে বেছে নিয়েছে নিজেদের রাষ্ট্রপতি বলে এবং রাশিয়ার সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক সম্বন্ধে নতুন করে ভেবেছে, তখন আর কি দরকার...""সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে যখন রাশিয়া এটা করে তখন তা খারাপ, আর যদি তা ইজরায়েল করে - তবে ঠিক আছে". পাঠক ভেবেছেন যে, রুশ গুপ্তচরেরা কানাডার পাসপোর্ট ব্যবহার করেছে বোধহয়, অল্প কিছু দিন আগেই খবরে প্রকাশ হয়েছিল যে, ইজরায়েলের গুপ্তচরেরা ও কানাডার জাল পাসপোর্ট ব্যবহার করেছিল.কানাডার টেলিভিশন সাইট সি বি সি তে লোকে যা মন্তব্য করেছে, তা হল "আমি বুঝতে পারছি যে, খুব শীঘ্রই সি আই এ সংস্থার বাজেট দেখা হবে এবং তার আগে তাদের কিছু কাজ দেখানো দরকার, যাতে করে খরচ বাড়ার কারণ দেখানো যায়"."ওরা বেন লাদেনকে ধরতে পারছে না, সব থেকে বিপজ্জনক মাদক পাচারের চাঁই দের ধরতে পারছে না, তাই অন্ততঃ রুশ গুপ্তচরের নাম করে খানিক আওয়াজ তোলা যাক. কি আপসোসের কথা যে ওরা গত কয়েক বছর ধরে নাকি এই রকম এক মাত্র বিষয় নিয়ে কাজ করেছে. আমি যদি এই রকম কাজ করতাম, তবে আমাকে অনেকদিন আগেই কাজ থেকে ছাঁটাই করে দেওয়া হত"."একেবারে ক্ল্যাসিকাল গল্প! মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রায়ই নিজেদের দেশপ্রেমী জনতার মগজ ধোলাই করে তাকে সংবাদ মাধ্যম এবং রাজনৈতিক নেতাদের দিয়ে. কিছু দিন আগেই ওরা এটা করেছে রুশী আর জর্জ্জিয়ার যুদ্ধ নিয়ে, আর আবার নতুন চেষ্টা হচ্ছে দেশের লোককে রুশ দের সম্বন্ধে ভয় দেখানোর"."রাজনৈতিক ভাবে ভাগ করা আমেরিকার রাজ্যে শুধু আমেরিকার লোকেরাই তাদের নিজেদের লোকেদের উপর গোয়েন্দা গিরি করতে পারে".অবশ্যই কিছু কানাডার লোক এই ব্যাপারে একটু শান্তি হারিয়েছেন, যারা কিনা রুশ গুপ্তচরের ভয় পেয়েছেন. এমন কি কিছু বিরল ঘোষণা হয়েছে, যে রাশিয়া – "এখনও শ্বেত ভল্লুক, যে আপাততঃ ঘুমাচ্ছে, দাঁড়াও একটু পরেই জেগে উঠবে". কিন্তু এই ঘটনায় রেগে উঠেছে – এমন একটা লোকের খবরও পাওয়া যাচ্ছে না.