রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ তাঁর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফর শুরু করেছেন ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যে. তিনি যাচ্ছেন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও সিলিকন ভ্যালি তে. আর শুধু তারপরই ওয়াশিংটনে দেখা করতে চান মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার সঙ্গে.    রাশিয়ার অর্থনীতি আধুনিকীকরণের পরিপ্রেক্ষিতে ও তা উদ্ভাবনী প্রযুক্তির রেল পথে স্থাপন করতে হলে এই ধরনের সরকারি সফরের পরিকল্পনা যুক্তি সঙ্গতই মনে হয়. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি চান আমেরিকার সিলিকন ভ্যালির অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে মস্কোর উপকণ্ঠের স্কোলকোভা শহরে এক শক্তিশালী উচ্চ প্রযুক্তি কেন্দ্র গড়ে তুলতে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলে খুবই অল্প জায়গায় একসাথে রয়েছে অনেক গুলি উচ্চ প্রযুক্তির কেন্দ্রীয় কোম্পানী, যারা কম্পিউটার, মাইক্রো প্রসেসর, সফট ওয়্যার মোবাইল যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরী করেন. সেখানেই রয়েছে নাম করা সব বিশ্ববিদ্যালয়, যাদের মধ্যে আছে, স্ট্যানফোর্ড, যাকে সিলিকন ভ্যালির "হৃতপিন্ড" বলেই মনে করা হয়.    আমেরিকার অভিজ্ঞতা সন্দেহ নেই যে স্কোলকোভা তৈরীর কাজে লাগানো হবে. এ সম্বন্ধে বলা যেতে পারে শুধু এই জন্যই যে, এখানের উপদেষ্টা পরিষদে রয়েছে সিলিকন ভ্যালির কোম্পানী সিস্কো, যারা বিশ্বের এক অন্যতম উচ্চ প্রযুক্তি নির্মাতা বলে স্বীকৃত. আশা করা হয়েছে যে, রাশিয়ার প্রকল্পে আমেরিকার অন্যান্য বড় কোম্পানীরাও সামিল হবে. ক্যালিফোর্নিয়ার রাজ্যপাল আর্নল্ড শভার্শেনেগ্গের বিশ্বাস করেন যে, এই আশা পূর্ণ হবেই. "আমেরিকার কোম্পানীরা স্কোলকোভা শহরে সিলিকন ভ্যালি তৈরীতে সাহায্য করবে. এই ধরনের সহযোগিতা খুবই ফলপ্রসূ হবে ও দুই পক্ষের জন্যই লাভজনক হবে. রাশিয়া তার ক্ষমতার উপর নির্ভর করেই বিশ্বের একটি অন্যতম প্রযুক্তিগত ভাবে উন্নত দেশ বলে পরিচিত হবে. কারণ এখানে অনেক গুণী ও কর্মক্ষম লোক বাস করেন".    রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি আশা করেছেন যে, এই প্রকল্প শুধু আমেরিকার কোম্পানীরাই নয়, আরও বেশী করে রাশিয়ার লোকেরা যারা সিলিকন ভ্যালিতে কাজ করছেন, তারাও সমর্থন করবেন. তারা প্রায় হাজার দশেক লোক, আর রাশিয়া চায় এই সব লোকেদের যৌথ প্রকল্পের কাজে টেনে আনতে.    "স্কোলকোভা প্রকল্পের সঙ্গে যাই জড়িত থাক, তা এখানে প্রচুর উত্সাহের সৃষ্টি করেছে, কারণ এটা আমাদের জন্য নতুন ব্যবসার পথ খুলে দিয়েছে, - বলেছেন রাশিয়ার বিশেষজ্ঞদের সিলিকন ভ্যালির সংগঠনের প্রধান স্তাস হিরম্যান, এটা আমাদের খুবই স্বাভাবিক ইচ্ছা যে, আমরা আমাদের জ্ঞান ওখানে কাজে লাগাতে পারবো কিনা আর এখানের যোগাযোগ গুলিকে অকারণে নয়, ব্যবসায় লাভের জন্যই কাজে লাগাতে পারবো কিনা. যেহেতু আমরা এখানে গত দশ কুড়ি তিরিশ বছরে নিজেরাই এক অর্থে সিলিকন ভ্যালির উত্পন্ন জিনিসে পরিনত হয়েছি. অন্য দিক থেকে আমরা রুশ ভাষায় কথা বলি, আমাদের পক্ষে বেশী সহজ আমেরিকার লোকেদের চেয়ে রুশীদের বুঝতে, তাদের দিকটা দেখতে. আমরা এক ধরনের সেতু, যারা এখন খুবই দরকারি হয়ে পড়েছি".    আজ স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সিলিকন ভ্যালির সমস্ত লোকেরা উপচে পড়েছে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের সঙ্গে দেখা করতে, স্তাস হিরম্যান বলেছেন যে, তাঁর সম্মেলনে আসতে চাওয়া লোকের সংখ্যা যত জনকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় হলে ঢুকতে দেওয়া যেতে পারে তার থেকে তিন গুণ বেশী. সকলেই রাশিয়ার এই নতুন প্রকল্পের সম্বন্ধে বেশী করে জানতে চান.    দিমিত্রি মেদভেদেভের পরিকল্পনা অনুযায়ী মস্কো উপকণ্ঠের স্কোলকোভা এক বড় বৈজ্ঞানিক কেন্দ্রে পরিনত হবে, যেখানে শুধু উদ্ভাবনী প্রযুক্তিই তৈরী করা হবে না, তার থেকে লাভ করার শিক্ষার ও ব্যবস্থা করা হবে. এই প্রকল্পে উদ্ভাবক ও বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশেষ ধরনের কর, শুল্ক ও অন্যন্য বিষয়ে ছাড় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, যেখানের পুলিশ ও অন্যান্য পরিষেবা লোকেদের বুদ্ধি জনিত সম্পত্তি রক্ষার দায়িত্বও পালন করবে.     রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ক্যালিফোর্নিয়া গিয়েছেন এক বড় প্রতিনিধি দল, যাতে স্কোলকোভা প্রকল্পের প্রেসিডেন্ট ভিক্তর ভেক্সেলবের্গ রয়েছেন ও আরও বড় কোম্পানীর কর্মকর্তারাও আছেন. তাঁরাই গোগোল, টুইটার, অ্যাপেল, ইয়ানডেক্স সিস্কো এই সব কোম্পানীর কর্তাদের সঙ্গে কথা বলবেন ও তাঁদের অভিজ্ঞতাকে মস্কোয় নিয়ে আসবেন.