সোমবার থেকে শুরু হতে যাওয়া ইউরোপীয় পার্লামেন্টের  গ্রীষ্মকালিন সাধারন সভায় যে বিষয়গুলো আলোচনা করা হবে তা হল-কসোবো পরিস্থিতি,কিরগিজস্তানে মানবিক সমস্যা ও সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মানবিক সাহায্য প্রেরনকারি স্বাধীন ফ্লোটে ইজরাইলি হামলার পর মধ্যপ্রাচ্যে সৃষ্ট পরিস্থিতি.একদিকে রাশিয়ার জন্য আলোচনায় যে বিষয় প্রধান গুরুত্ব পাচ্ছে তা হল মস্কো-তিবিলিসি সম্পর্ক ও উত্তর কাবকাজে মানুষের অধিকার.এ সম্পর্কে জানালেন  ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাধারন সভার(পেএসাআ) রাশিয়ার প্রতিনিধির প্রধান কন্সানতিন কাচাচেব.যদিও সম্মেলনে অনেকগুলো এজেন্ডার কথা বলা হয়েছে কিন্তু মস্কো ধারনা করছে যে সম্মেলন অনেকটা নিরবেই শেষ হবে.সিমাহীন সমস্যাবলী নিয়ে ইউরোপীয়ান রাজনীতিবিদরা রাশিয়া দৃষ্টিভঙ্গিতে অনেকটা ক্লান্ত হয়ে পরেছে এবং রাশিয়া এখন নিজেদের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বিষয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ নিচ্ছে.স্বল্প সময়ে উত্তেজিত না হয়ে কার্যকরী বিষয়ে আলোচনা করা দরকার.তেমনি পরিস্থিতি হল রাশিয়া-জর্জিয়া আলাপ.গত ২০০৮ সনের আগষ্টে জর্জিয়া ও দক্ষিন ওসেতিয়ার মাঝে সৃষ্ট যু্দ্ধে যে বিতর্ক তৈরী হয়েছে তা ২ বছর অতিক্রম করেছে.প্রথমবারের মত ঐ বিতর্ক আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যখন পার্লামেন্ট সদস্যরা রাশিয়ার প্রতিনিধিদেরকেপার্লামেন্টে ভোট প্রদানে বিরত রাখতে চেয়েছিল.বর্তমানে যে কোন ভাবই সেই পরিস্থিতির পরিবর্তন এসেছে. কাচাচেব বলেন,আমি বিশ্বাষ করি যে,অদূর ভবিষ্যতে মস্কো-তিবিলিসি সম্পর্ক কিছুটা হলেও পরিবর্তন আসবে.তিনি বলেন-ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাধারন সভার(পেএসাআ)এই বিষয়ে অগ্রগতি আসে চলতি বছরে এপ্রিলে,যেখানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি হাইদি তালিয়াবিনির একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয় যার প্রধান বিষয় ছিল দক্ষিন ওসেটিয়ার যুদ্ধের কারণ.অপরদিকে ২য় বিষয়টি হল,ঐ এপ্রিল মাসেই রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই ল্যাভরোবের আশ্বচার্যজনক বিবৃতি যিনি ২০০৮ সনের আগষ্ট মাসের ঘটে যাওয়া ঘটনাবলির অনেক অজানা বিষয় উদঘাটন করেছেন.অন্য বিষয়টি মস্কোর জন্য তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয় ,তা হল উত্তর কাবকাজে মানবিক অধিকার বিষয়ে প্রতিবেদন.ঐ প্রতিবেদনটি তৈরী করেছেন সুইজারল্যান্ডের নাগরিক দিক মার্টি.যিনি এক সপ্তাহ চেচনিয়ে,দাগিস্তান ও ইনগুশেঠিয়া অবস্থান করেছেন.আগামী মঙ্গলবার ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাধারন সভার ইউরোপীয় সদসদের একটি ফেডারেল ও আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ  সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে খসড়া আইন উথাপন করবেন.ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাধারন সভার রাশিয়ার প্রতিনিধির মতো,বিচার বিভাগ জুনের এই আলোচনায় হয়ত কঠোর সিদ্ধান্ত গ্রহন করবে.তবে প্রতিবেদনের গুরুত্বপূর্ন প্রশ্নে একই মতামতা পৌঁছেছে.পেএসাআ এ রাশিয়ার প্রতিনিধি আরও বলেন যে, উত্তর কাবকাজকে নিয়ে ঐ নথিপত্রটি পুরোপুরি সঠিকভাবেই তৈরী হয়েছে.তবে উত্তর কাবকাজে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে এটি কোন ভূমিকাই পালন করবে না.কন্সানতিন কাচাচেব ইনগুশেঠিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউনুস বেক এবকুরবের সাথে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সাধারন সভায় এই বক্তব্যই বলবেন.