থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী অভিসিত ভেতচাচিভা আজ তার বিরোধী দলের উপরে একটি কৌশল গত জয় করতে পেয়েছেন, তিনি তাঁর মন্ত্রীসভার উপর অনাস্থা ভোটের প্রস্তাবে হেরে যান নি. ভোট দেওয়ার সময়ে যারা তার বিরোধিতা করেছিল, তাদের সংখ্যা নিতান্তই কম দেখতে পাওয়া গেল. বিরোধী দল প্রধান মন্ত্রী ও তাঁর মন্ত্রীসভাকে পদত্যাগ করতে বলেছিল, তাঁদের নামে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছিল, দেশ চালাতে অক্ষম বলে অভিযোগ করেছিল ও আরো বলেছিল যে, তার সরকার মানবাধিকার ভঙ্গ করেছে বিগত দুই মাসের বেশী সময় ধরে বিরোধী পক্ষের বিক্ষোভ প্রদর্শনের সময়ে. মিছিল ও বন্ধ ভঙ্গ করার সময়ে থাইল্যান্ডে ৮৮জন মারা পড়েছে ও প্রায় এক হাজার আটশো লোক আহত হয়েছে. পর্যবেক্ষকদের মতে বিরোধী পক্ষের লোকেরা ভেতচাচিভা কে পদত্যাগ করানো থেকে নিরস্ত হবে না, কিন্তু লাল জামা পরা বিরোধী দলের আরও কয়েক মাস সময় লাগবে আবার নতুন করে লোক জড় করতে এবং সরকার বিরোধী কাজকর্ম শুরু করতে. সরকার দেশে জরুরী অবস্থা প্রত্যাহার করেনি এবং বিরোধী পক্ষের সংবাদ মাধ্যমের উপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রেখেছে. দেশের বিগত প্রধানমন্ত্রী তাকসিনা চিনাভাতা কে গ্রেপ্তার করার জন্য ওয়ারেন্ট বহাল রেখেছে, কারণ মনে করে যে, তিনিই এই সব বিরোধী কার্যকলাপের মূল উদ্যোক্তা.