মস্কোর সঙ্গীতের গ্রীষ্ম শুরু হয়েছে সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার প্যারেড দিয়ে. এই ট্র্যাডিশন চলছে পাঁচ বছর ধরে. ১২ই জুন রাশিয়া দিবস উপলক্ষে জাতীয় উত্সবের আগে রাশিয়ার রাজধানীতে এই উত্সবের সম্মানে ২রা থেকে ১১ ই জুন পঞ্চম বিশ্ব সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে.    রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির সংস্কৃতি বিষয়ক উপদেষ্টা ইউরি লাপতেভ উল্লেখ করে বলেছেন: "ভালই হয়েছে যে আমাদের জাতীয় উত্সবে ঐতিহ্য মেনে আবার ক্ল্যাসিক্যাল সঙ্গীতের উত্সব আয়োজন করা হয়েছে, শুধু জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিবেশনেই আর সীমাবদ্ধ রাখা হচ্ছে না.    এই অনুষ্ঠানের আয়োজকেরা প্রত্যেক বার কোন না কোন আগ্রহ জাগাতে পারে এমন ধারণা নিয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকেন, যাতে এটাকে শুধুমাত্র অর্কেস্ট্রা দলের প্রদর্শনী মনে না হয়. একটা মূল সূত্র, যা সিম্ফনির দুনিয়াকে বিভিন্ন দিক থেকে দেখাতে পারে. আমরা বহু বিখ্যাত ইউরোপের অর্কেস্ট্রা দলের বাজনা শুনেছি. আর এবারে আমরা প্রথম বার শুনতে চলেছি এশিয়ার দল গুলির অনুষ্ঠান মস্কোর মঞ্চে. আমার জন্য, একজন দর্শকের জন্য যেমন, খুবই কৌতুহলের বিষয় হল কি রকম ভাবে এই সমস্ত অঞ্চলে সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা উন্নতি করছে, বিশ্বের এই পাশ টিতে. দারুণ কাণ্ড হতে চলেছে তুরস্কের আঙ্কারা শহরের একটি বহু প্রাচীন সিম্ফনি অর্কেস্ট্রার অনুষ্ঠান. আমি তো জানতামই না যে তাঁদের অর্কেস্ট্রার ইতিহাস ১৮০ বছরের! অথবা বারত থেকে আসা এক অল্প দিনের অর্কেস্ট্রার দলের কথাই ধরা যাক... কিন্তু আবেগের বন্যা শুধু আমাদের শ্রোতাদের দিকেই ধেয়ে আসছে না, আমরাও আমাদের অতিথিদের স্মৃতিতে ও মনে একটা চিহ্ন রেখে যাবো. যারা এবারে রাশিয়া আসছেন, তারা কখনও আমাদের সম্বন্ধে একেবারেই বিভিন্ন রকমের কথাবার্তা শুনে থাকেন. এবারে তাদের সুযোগ হবে সবই নিজেদের মতো করে পরীক্ষা করার – আমাদের জনতার সঙ্গে দেখা করার, রাশিয়ার রাজধানীকে দেখার. এই উত্সবের আয়োজকেরা সব সময়েই ছোট একটি সংস্কৃতি উত্সবের আয়োজন করে থাকেন, যাতে বুঝতে পারা যায়, কোথায় অতিথিরা এসেছেন, আর সেখান থেকে কিছু মনে হওয়া সঙ্গে করে নিয়ে যাওয়া যায়".    বিগত বছর গুলিতে ইউরোপের বিখ্যাত অর্কেস্ট্রা গুলির সাথে রাশিয়ার সম্বন্ধে ধারণা নিয়ে গিয়েছেন বিশ্ব বিখ্যাত লোকেরা, যেমন, লোরিন মাজেল, জুবীন মেটা, রিকার্ডো মুটি, আন্তোনিও পাপ্পানো, মুঙ্গ ভুন চুঙ্গ...প্রসঙ্গতঃ বিখ্যাত অর্কেস্ট্রা পরিচালক মুঙ্গ ভুন চুঙ্গ এ বছরেও আসছেন – সিওলের অর্কেস্ট্রা পরিচালনা করতে. আর এবারের অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন চীন – ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, তুরস্ক এই সব দেশের অর্কেস্ট্রা. আর সঙ্গীত পরিবেশিত হবে ইউরোপের সেরা কম্পোজিশন গুলি ছাড়াও বীথোভেন, ডেবুসি, রাভেল, মেসিয়ানা ও চীনের, কোরিয়ার, তুরস্কের সঙ্গীত স্রষ্টা দের. সুতরাং মস্কোর লোকেরা বলা যেতে পারে পূর্ব্ব ও পশ্চিমের এক সঙ্গীতময় বাক্যালাপের সাক্ষী হতে চলেছেন.    শুধু মস্কোরই নয়, এই উত্সবের শ্রোতা হতে যে কেউই সারা বিশ্বে পারেন – তার জন্য ইন্টারনেট ব্রাউজারে – symphonyfest.ru টাইপ করে তার ফোরামে গেলেই চলবে.    আর রাশিয়ার পক্ষ থেকে উত্সবে সরাসরি অংশ নিতে চলেছে তাতারস্থানের সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা এবং চাইকোভস্কির নামাঙ্কিত বড় সিম্ফনি অর্কেস্ট্রা...