তামাকের ধোঁয়া পানের যাঁরা বিরুদ্ধে, তাঁরা মনে করেন সোমবার থেকে সিগারেট বন্ধ করে নতুন জীবন শুরু করা যেতেই পারে, তাই সবাইকে আহ্বান করা হয়েছে. আজ ৩১শে মে, রাশিয়াতে বিশ্ব তামাক সেবন নিরোধ দিবস পালন করা হচ্ছে. যাদের তামাক ছেড়ে দেওয়ার মত মনের জোর নেই, তাদের জন্য নতুন ধূমপান নিয়ন্ত্রণ আইন গ্রহণ করা হয়েছে.     পরিসংখ্যান শান্ত হওয়ার মত নয়, রাশিয়াতে শতকরা ৬০ ভাগ পুরুষ মানুষ ও শতকরা ৩০ ভাগ মহিলা সিগারেট পান করেন, আর রাশিয়ার বেশীর ভাগ লোকই এই অভ্যাসের শিকার হয়েছে তাদের কৈশোরে. কেন তারা রোজ সিগারেট খেতে চায়, তার কারণ প্রত্যেকেই নিজের মত করে ব্যাখ্যা করেছে, কেউ বলেছে অভাব বোধ আর নিঃসঙ্গতা কারণ, কেউ বলেছে দলে পড়ে পান করে, কেউ বলেছে চিন্তা করতে সুবিধা হয়, ঠাণ্ডা হতে বা মানসিক চাপ কমাতে সুবিধা হয়... একই সময়ে প্রচুর ডাক্তারী অনুসন্ধান প্রমাণ করে দিয়েছে যে, যারা সিগারেট খায় না, তাদের উপর মানসিক চাপের প্রভাব কম.    এইটা অবশ্য যারা ধূমপান করেন, তারা মানবেন. সারা রাশিয়া সামাজিক মতামত পর্যবেক্ষণের কেন্দ্রের সমীক্ষার ফলে দেখা গিয়েছে যে, রাশিয়াতে যারা সিগারেট ছেড়ে দিতে চান, তাদের সংখ্যা অনেক. বলা যেতে প্রতি দ্বিতীয় লোকই তা চাইছে. বিশেষত যাদের বয়স আজ ৩৫এর বেশী.এই সমীক্ষায় দেখা গেছে প্রতি দশ জনের একজন রাশিয়ার লোক সিগারেট পান করা ছেড়ে দিয়েছে আজ প্রায় তিন মাস হল.    অনেক ক্ষেত্রেই এতে সাহায্য করেছে নতুন ধূমপান নিষিদ্ধ করা সংক্রান্ত আইন, রাশিয়া দুই বছর আগে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ধূমপান নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত কাঠামো চুক্তিতে সই করেছে, তাই আন্তর্জাতিক আইন মেনে এই ক্ষতিকর অভ্যাসের মোকাবিলায় রত. নতুন আইনে সার্বজনীন জায়গা গুলিতে সিগারেট বা তামাক ব্যবহার বন্ধ করা হয়েছে. বর্তমানে অপ্রাপ্তবয়স্কদের তামাক বিক্রী করলে তার জন্য কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে. আরও একটি কার্যকরী ব্যবস্থা হল তামাকের বিজ্ঞাপন বন্ধ করা. রাশিয়ার লোকসভার স্বাস্থ্য সংরক্ষণ পরিষদের উপপ্রধান নিকোলাই গেরাসিমেঙ্কো বলেছেন:    "টেলিভিশনে বর্তমানে অস্পষ্ট এক ধরনের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করা হচ্ছে, লোকে ভাবছে যারা সিগারেট পান করে তারা বুঝি সব বীর. আমরা একটা আইন তৈরী করছি, যাতে সব রকমের বিজ্ঞাপন বন্ধ করা সম্ভব হয়, আমার মনে হয়, সর্বত্র তা বন্ধ করে দেওয়া দরকার, শুধু এর জন্য বিশেষ ধরনের দোকান রাখা যেতে পারে. সিগারেটের প্যাকেটের শতকরা পঞ্চাশ ভাগ জায়গা জুড়ে লেখা হওয়া উচিত্ যে, তাক পানের ফলে মৃত্যু হয়, কর্কট রোগ হয়, যৌন শক্তি কমে যায়. এই লেখা প্যাকেটের দুই পিঠেই হওয়া উচিত. আমাদের দেশে সিগারেটের প্যাকেটের উপরে লেখা হয় হাল্কা – লেখা উচিত্ হালকা মানে কম ক্ষতিকর নয়. আমরা চাইব এই হাল্কা কথাটা লেখা বন্ধ করতে আর প্যাকেটের উপরে ধূমপানের ক্ষতির বিষয়ে ছবি ও কার্টুন ব্যবহারের কথা বলবো".    অবশ্যই এটা মনে করা খুব বোকামি হবে, যদি ভাবা হয় যে, এই সব দেখে লোকে ধূমপান ছেড়ে দেবে, তাও কিছু লোক হয়ত এই কু অভ্যাসের থেকে রেহাই পেতেও তো পারে. রাশিয়াতে টেলিভিশনে যখন দেখানো হয়েছিল যে, সিগারেট যারা পান করেন, তাদের ফুসফুস অনেকটা স্পঞ্জের মত, আর তাতে প্রতি বছরে প্রচুর পরিমানে প্রায় অর্ধেক গ্লাস ভর্তি তামাকের গাদ জমা হয়, তা দেখে কিছু লোক তো তামাক পান ছেড়েছিলেন.নিকোলাই গেরাসিমেঙ্কো আরও বলেছেন যে, সবচেয়ে কার্যকরী হল সিগারেটের দাম বাড়িয়ে দেওয়া, কারণ এখন তার দাম একটা চুইং গামের চেয়ে কম, তাই এমনকি বাচ্চারাও তা কিনতে চায়. রাশিয়াতে ২০১২ সালের মধ্যে সিগারেটের করের মাত্রা সারা ইউরোপের মত বাড়ানোর কথা হয়েছে. আরও একটা সার্বজনীন উপায় আছে, তা হল, স্রেফ নিজেকে বলা যে "আমি আর সিগারেট খাই না, কারণ আমার আর তাতে দরকার নেই".