আফগানিস্থানের পরিস্থিতি শান্ত করার উপায় হিসাবে মার্কিন সৈন্য সরিয়ে নিলেই তা একমাত্র হবে না. এই ধারণা প্রকাশ করেছেন আফগানিস্থানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সেনা বাহিনীর কম্যাণ্ডার জেনেরাল স্ট্যানলি ম্যাকক্রিস্টাল.মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার আশ্বাস অনুযায়ী ২০১১ সালের জুলাই মাসের পর থেকে এই দেশ থেকে সেনা বাহিনী অপসারণের কাজ শুরু হবে, কিন্তু যারা মনে করেন যে, দেশের পরিস্থিতি অশান্ত হওয়ার পেছনে শুধু বিদেশী সেনা বাহিনীর উপস্থিতিই কারণ, তাদের আনন্দ করার কোন কারণই নেই বলে আমেরিকার নেতৃত্ব মনে করেছেন. স্থানীয় জনসাধারণ আফগানিস্থানের সরকারকে খুব একটা বিশ্বাস করে না, আর তাদের নিজেদের নিরাপত্তা রক্ষা বাহিনী এখনও দেশের হাল নিজেরা ধরতে পারার মত করে তৈরীই হয়নি. তাই এই দেশে যুদ্ধ চলবে আরও বহু বছর.দেখা যাচ্ছে যে, এখানে একই বিষয়ে দুই দিকেই সমস্যা, আমেরিকার সেনা বাহিনী সরে গেলেও ভাল কিছু হবে না, আবার তাদের গত ৯ বছর ধরে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস নিধন যজ্ঞের পর কোন রকম ঘোষিত লক্ষ্য সাধিত না হওয়ায় রেখে দিয়েও কোন মানে হবে না. কিন্তু শুধু আমেরিকার সেনা বাহিনীর ওপর ভরসা তো না করলেও হয়, মস্কো আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ইনস্টিটিউটের প্রাচ্য বিশারদ প্রফেসর সের্গেই দ্রুঝিলভস্কি বলেছেন:"রাষ্ট্র সংঘের কাছ থেকে দায়িত্ব পেয়ে আফগানিস্থানে মুসলিম দেশ গুলির সেনা বাহিনীকে পাঠানো যেতেই পারে, যেমন, ইরান, পাকিস্থান, তুরস্কের বাহিনী. তাদের সমস্ত ভাগের লাইন বরাবর দাঁড় করিয়ে দিলে অনেক ভাল ফল পাওয়া যেতে পারত. ইউরোপ বা আমেরিকার সেনা বাহিনীর তুলনায় মুসলিম দেশের বাহিনী এই দেশের জনতার কাছে চক্ষু শূল হত না, কারণ মুসলিম লোকেরা যে কোন অন্য ধর্মের লোককেই শুধু দখল কারী বলেই ভাবে না, বরং ভাবে তাদের সভ্যতার বিরোধী বলেই ভাবে. আর তাই এ ক্ষেত্রে ধর্মের বিষয়ে যে সব দেশ কাছা কাছি, তারা বরং আমেরিকার লোকেদের চেয়ে অনেক বেশী সফল হতে পারত".আমেরিকার সেনা বাহিনী বর্তমানে নিজেদের শক্তি হীনতার কথা স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে, জেনেরাল ম্যাকক্রিস্টাল বাস্তবে স্বীকার করেছেন যে, শীত কালে গেলমেন্দ প্রদেশে ঘোষিত যুদ্ধ অসফল, প্রথমে তালিবেরা এই অঞ্চল ছেড়ে পালিয়ে গেলেও আবার ফিরে এসেছে. সের্গেই দ্রুঝিলভস্কি মনে করেন যে, এবারেও ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হয়েছে, তিনি বলেছেন:"আমেরিকার সৈন্য দের সাথে একই রকম সব ব্যাপার ঘটছে, যা সোভিয়েত সেনা বাহিনীর এই দেশে থাকার সময় ঘটেছিল, তারা শুধু কয়েকটা নির্দিষ্ট জায়গায় নিজেদের রক্ষা করতে ব্যস্ত. আর তার চারপাশে আমেরিকার সেনাদের কোন নিয়ন্ত্রণ নেই, এক গেরিলা যুদ্ধ চলছে, আর সেই পরিস্থিতিতে পাঁচ জন যোদ্ধার পেছনে বিরাট বাহিনী পাঠানোতে কোন লাভ নেই, তাতে শুধু খরচই বাড়ে".বর্তমানের আফগানিস্থান কোন বাস্তবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এমন প্রশাসন ছাড়া ফেলে আসাও যায় না, তাহলে পর মুহূর্তেই নানা গোষ্ঠীর যোদ্ধারা তাদের দেশকে টুকরো করে ফেলবে আর তখন গুণ্ডামি ও মাদক পাচারের মোকাবিলা করাই সম্ভব হবে না. কিন্তু এই প্রশ্নের সমাধান ন্যাটো কিম্বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের করার কথা নয়, এটা রাষ্ট্র সংঘের নিরাপত্তা পরিষদের করার কথা. বেশী করেই বিশেষজ্ঞরা এখন এই দিকে ঝুঁকছেন. আফগানিস্থানে শান্তি পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে হবে সকলের মেনে নেওয়া আইন সঙ্গত অবস্থায় আন্তর্জাতিক ভাবে সহযোগিতার মাধ্যমে.