এই বছরে আফগানিস্থানে আফিম চাষের ফসল তোলা কমেছে – অজানা এক ধরনের ছত্রাকের আক্রমণে সেখানে প্রায় একের চতুর্থাংশের বেশী এই মৃত্যুর কারণ হওয়া উদ্ভিদের চাষ নষ্ট হয়েছে. দুঃখের কথা হল, এই আচমকা পাওয়া মাদক পাচারের বিরুদ্ধে সংগ্রামের শরিক আফগানিস্থানের থেকে বেরিয়ে আসা দেশ বিদেশে পাচার হয়ে যাওয়া হেরোইনের সমস্যার সমস্ত সমাধান করতে পারছে না.    আফগানিস্থানের মাদক পাচারের সঙ্গে সংগ্রাম করা সম্ভব শুধু মাত্র রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় সংঘের সকলের কাজের মধ্যে একটা সমাকলন করা সম্ভব হলে তবেই. তাছাড়া রাষ্ট্রসংঘের তরফ থেকেও মাদকের বিপদকে বিশ্বের বিপদ এবং তা জলদস্যূ সমস্যার সমান গুরুত্বপূর্ণ বলে মেনে নেওয়া উচিত, রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে রাশিয়ার লোকসভার নিরাপত্তা পরিষদের উপপ্রধান মিখাইল গ্রিশানকোভ এই কথাই বলেছেন. তিনি আরও বলেছেন:    "আফগানিস্থানের সমস্যার সম্পূর্ণ সমাধান করা খুবই কঠিন, তবে সেখানে মাদক দ্রব্যের চাষ যথাসম্ভব সীমিত করা যেতেই পারে. আন্তর্জাতিক সমাজের সমস্ত শক্তিকে এই কাজে তার জন্য এক করতে হবে, কারণ হেরোইন আজ শুধু রাশিয়ার জন্যই সমস্যা নয়, তা আজ ইউরোপের ও অন্য অনেক দেশের সমস্যা. এখনও আফগানিস্থানে থাকা মার্কিন ও ন্যাটো জোটের সৈন্য বাহিনী মাদক দ্রব্য ধ্বংস ও তা উত্পাদনের ল্যাবরেটরী অনুসন্ধানকে নিজেদের কাজ বলে মনে করে নি. যদিও তা করার জন্য ওদের কাছে সমস্ত রকমের সুযোগ রয়েছে, অংশতঃ স্থলে ও মহাকাশে অনুসন্ধানের জন্য প্রয়োজনীয় কাঠামো ওদের কাছে খুবই ভাল রকমেরই আছে. আফগানিস্থানে আফিমের ব্যবসা বন্ধ করা জোটের সৈন্যদের জন্য লক্ষ্য হওয়া উচিত. এইটাই রাশিয়া দাবী করেছে, আমি মনে করি রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মাদক দ্রব্য কারবার নিয়ন্ত্রণ পরিষেবার প্রধান ভিক্তর ইভানভ যে এই কাজের জন্য রাশিয়া- ন্যাটো কর্ম সমিতি সৃষ্টি করার কথা বলেছেন, তা খুবই ভাল দিক হতে পারে".    আফগানিস্থান চোখের সামনে বিশ্বের এক মাদক দ্রব্য সরবরাহের অগ্রণী দেশ হয়ে দাঁড়িয়েছে, সেখানের চাষীদের বেঁচে থাকার জন্য উপার্জনের এক বড় অংশ আসছে এই "সাদা মৃত্যু"র চাষের থেকে. জানা আছে যে, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস ও মাদক মাফিয়া হাতে হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে এবং একে অপরের সঙ্গে সহযোগিতা করছে. মাদক থেকে আয় হওয়া ডলার আজ সন্ত্রাসবাদী কাজে বিনিয়োগের এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়েছে.    একটি অদ্ভূত বিষয় লক্ষ্য না করে পারা যাচ্ছে না, আফগানিস্থানের মাদক উত্পাদন ও পাচারের বড় অংশই সেই সব জায়গায় রয়েছে, যা মার্কিন ও ন্যাটো জোটের সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে আছে. হেরোইনের উত্পাদনের উন্নতি এখানে  অদ্ভূত ভাবে জোটের সৈন্য সংখ্যার ঘনত্ব ও বৃদ্ধির সাথে সমানুপাতে বেড়েই চলেছে. হতে পারে জোটের সেনা বাহিনীর কোন ইচ্ছাই নেই এখানে মাদক ব্যবসার সঙ্গে লড়াই করার. রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে এই কথাই রাশিয়ার বিজ্ঞান একাডেমীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ ও আফিম সম্পর্কিত মাদক ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ের বিশেষজ্ঞ ইগর খাখলভ বলেছেন:    "আফগানিস্থানে ন্যাটোর আন্তর্জাতিক সৈন্যবাহিনী তালিবানের সঙ্গে যুদ্ধকে তাদের একমাত্র কাজ বলে মনে করেছে, আর আফিম চাষ বন্ধের প্রসঙ্গকে মনোযোগ দেয়ই নি. তারা মনে করে যে, এটাই আফগান চাষীদের একমাত্র আয়ের পথ, আফিম চাষ করা, তার থেকে মাদকের কাঁচা মাল তৈরী করে ল্যাবরেটরী গুলিকে বিক্রী করা, যা থেকেই হেরোইন তৈরী হয়. তাদের এই ভাবে রোজগার করার পথ বন্ধ করলে, তারা তালিবদের সঙ্গে গিয়ে হাত মেলাবে. কিন্তু অন্য দিক থেকে দেখলে, দেখা যাবে যে, এই ধরনের রাজনীতি কানা গলির দিকে নিয়ে যাচ্ছে. কারণ মাদকের উত্পাদন বৃদ্ধি ও তার থেকে আয় বৃদ্ধি হলে কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা হ্রাসই হয়, যারা এর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাই নিতে পারছে না. প্রসঙ্গতঃ কয়েকদিন আগে খুবই অবাক করা এক তথ্য যোগ হয়েছে যে, এই বছর আফিমের উত্পাদন কম হতে চলেছে, আর তা হয়েছে এক অজানা ছত্রাকের আক্রমণের ফলে".    হতে পারে মধ্য এশিয়ার দেশ গুলি এই ভাবে আফগান আফিম চাষের মোকাবিলা করার কাজ করছে, জানা আছে যে, উজবেকিস্থানের বিজ্ঞান একাডেমীর পরিকল্পনাতে (এটা কোন গোপন খবর নয়, খোলাখুলি দেখাই যায়) একটি কাজের লক্ষ্য হল – জৈব বিজ্ঞান সম্মত পদ্ধতিতে আফিম চাষের মোকাবিলা করা. যে কোন ভাবেই ব্যবস্থা অবলম্বন করে সমস্যা সমাধান করা যেতে পারে, তবে তা হতে পারে আফগানিস্থানে মাদক উত্পাদনের ব্যবসা বন্ধ হলে তবেই.    মাদক সমস্যা সমাধান না হলে আফগানিস্থান কোন দিনই নিরাপদ হবে না, জোটকে প্রস্তাবিত রাশিয়ার আফগানিস্থান সম্বন্ধে পরিকল্পনাতে এক বিশাল সংখ্যক বাস্তব কাজের পদক্ষেপের কথা বলা হয়েছে. যেখানে খবরের আদান প্রদান করা ছাড়াও একসাথে কাজ করা, মাদক পাচার নিয়ন্ত্রণ, এই ব্যবসা থেকে পাওয়া কালো টাকা সাদা করা বন্ধ করা, মাদক বিরোধী কাজের জন্য বিশেষজ্ঞ তৈরী করা এই সব. সমস্ত রকমের ভিত্তিই আছে মনে করার যে, মাদক ব্যবসার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার ভিত্তি শীঘ্রই তৈরী হবে, এই কাজ সমাধা করতে ৯ই জুন মস্কোতে "আফগানিস্থানের মাদক উত্পাদন – বিশ্ব সমাজকে হুমকি" নামে এক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে. তাতে রাষ্ট্রসংঘ, ন্যাটো ও যৌথ নিরাপত্তা সংস্থার দেশ গুলি অংশ নেবে.