উত্তর কোরিয়ার সৈন্যবাহিনীকে যুদ্ধপ্রস্তুতির অবস্থায় আনার নির্দেশ দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম চেন ইর. সংবাদ সংস্থা রয়টার জানাচ্ছে যে, এ খবর জানিয়েছেন সর্বোচ্চ সামরিক অধিনায়কমন্ডলীর প্রতিনিধি. এর প্রাক্কালে সেওল উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে বাধানিষেধ প্রবর্তনের কথা ঘোষণা করে, বিশেষ করে পিয়ং ইয়ংয়ের সাথে সমস্ত বাণিজ্যিক যোগাযোগ বন্ধ করেছে. দু দেশের মাঝে সম্পর্ক তীব্র হয়ে ওঠে যখন বিদেশী বিশেষজ্ঞদের অংশগ্রহণে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারী কমিশন এ সিদ্ধান্তে আসে যে, ২৬শে মার্চ পীত সাগরে ডুবে যাওয়া দক্ষিণ কোরিয়ার কর্বেট ধ্বংস হয়েছিল উত্তর কোরিয়ার ছোট সাবমেরিন থেকে ক্ষেপণ করা টর্পেডোর দ্বারা. পিয়ং ইয়ং এ অভিযোগ অস্বীকার করে. এ সঙ্ঘর্ষে সেওলকে সমর্থন করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, আর শিগগিরই এ প্রশ্নটি আলোচিত হবে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন এ আশা প্রকাশ করেন যে, নিরাপত্তা পরিষদ দক্ষিণ কোরিয়ার কর্বেট ধ্বংস হওয়া উপলক্ষে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে.