খুব কম করে আরও এক বছর রাশিয়ার অর্থনীতি বিশ্ব বিনিয়োগ ও অর্থনৈতিক সঙ্কটের কারণে অস্বস্তি বোধ করবে. তারপর ভাল হওয়া শুরু হবে. রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের প্রধান সের্গেই ইগনাতিয়েভ তাঁর এই রকম দৃষ্টি ভঙ্গী ব্যক্ত করেছেন.

    কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের প্রধানের মতে এই সময় লাগবে ব্যাঙ্ক ব্যবস্থায় ঋণ দেওয়া আবার শুরু করতে ও ব্যাঙ্ক গুলির নিয়ন্ত্রণ ও পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থায় নিয়ম শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে. জানা আছে যে, ২০০৮ সালে বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্কটের শুরু থেকেই রাশিয়ার সরকার ব্যাঙ্ক, কারখানা ও অর্থনীতির বেশ কয়েকটি বিভাগকে সরাসরি বহু ট্রিলিয়ন রুবল অনুদান হিসাবে দিয়েছে. পরে এমন কি ব্যাঙ্কের ঋণের উপরে সরকারি গ্যারান্টি দেওয়া হয়েছিল, যাতে এই ব্যবস্থায় প্রাণ আসে. যদিও ব্যাঙ্কের মালিকদের খিদে তাতে মোটেও কমে নি. বিভিন্ন সভায় বক্তৃতা প্রসঙ্গে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন বহুবার বলেছেন যে, ব্যাঙ্ক গুলি সুদের যে হারে ঋণ দিচ্ছে, তাতে বাস্তব কাজে যুক্ত কোম্পানী গুলির পক্ষে ঋণ নেওয়া অসম্ভব হয়েছে. জানা আছে যে, রাশিয়ার ব্যাঙ্ক গুলি ঋণ দিতে রাজী হচ্ছিল শতকরা বার্ষিক ২৫ – ৩০ এরও বেশী শতাংশ হারে, তার ফলে কার্যক্ষেত্রে এই ঋণের কোন অর্থই ছিল না. একই সময়ে পশ্চিমের দেশ গুলিতে ঋণের সুদ খুব কম সময়েই ৭ থেকে ১০ শতাংশের বেশী হয়েছে. আর শুধু মাত্র বর্তমানেই, যখন কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ক্রমান্বয়ে রিফাইনান্সিং এর ক্ষেত্রে সুদের হার কমাচ্ছে, ব্যাঙ্ক গুলির সুদের হারও সস্তা হতে শুরু করেছে.

    সের্গেই ইগনাতিয়েভ নিজেও এই ঋণ ব্যবস্থার খুব কম উপযুক্ততা স্বীকার করেছেন. তিনি এই বিষয়টিকে রাশিয়ার ব্যাঙ্ক ব্যবস্থা যে খুব একটা আত্ম বিশ্বাসী হতে পারে নি, তার সঙ্গেই যুক্ত করে দেখেছেন. তাই বর্তমানে ব্যাঙ্ক ব্যবস্থা কঠোর করার কথা ভাবা হচ্ছে না.

    রাশিয়ার লোকসভার সদস্য আনাতোলি আকসাকোভ কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের প্রধানের এই মতের সঙ্গে সহমত হয়ে রেডিও রাশিয়াকে দেওয়া একটি সাক্ষাত্কারে বলেছেন:

    "আমি মনে করি আর এক বছর বাদে রাশিয়া সত্যই সঙ্কটের থেকে বেরিয়ে এসে অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাপ কাঠিতে ইতিবাচক ফল দেখাতে শুরু করবে, যা সঙ্কটের আগের সময়ের পরিমাপের সঙ্গে তুলনা করা সম্ভব হবে. অবশ্যই এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ হল যে, কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ও সরকারকে কয়েকটি পদক্ষেপ নিতে হবে. উন্নতির জন্য প্রয়োজন হবে মুদ্রা বিনিময়ের হার সম্বন্ধে আরও নরম নিয়ম. রাশিয়ার সরকারি কর্পোরেশন গুলির প্রকল্পে বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে হবে, তার মধ্যে সরকারি ও ব্যক্তিগত মালিকানার যৌথ প্রকল্প গুলিও থাকবে. অন্য কথায় বলতে হলে, সমস্ত লক্ষণই দেখা যাচ্ছে অর্থনীতির সঙ্কট কাটিয়ে বেরোনোর. বিশ্বের অন্য দেশের বাজারের অবস্থাও ভালর দিকেই য়াচ্ছে, যার ফলে রাশিয়ার রপ্তানী যোগ্য জিনিসের পরিমান বাড়বে".

    রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের প্রধান মূল্য বৃদ্ধি ও রাশিয়ার জাতীয় মুদ্রার অবস্থা নিয়ে আরও কয়েকটি ইতিবাচক ভবিষ্যত বাণী করেছেন, তাঁর মতে, রুবলের দাম ওঠা নামার উপর কার্বন যৌগের দামের ওঠা পড়া কোন প্রভাব ফেলবে না, আর আগামী কয়েক বছরে মূল্য বৃদ্ধির হার শতকরা ছয় শতাংশই থেকে যাবে. প্রসঙ্গতঃ যদি আবার বিশ্বে আরও একটি সঙ্কটের ঢেউ আসে, যার কথা সের্গেই ইগনাতিয়েভের সহকর্মী অর্থমন্ত্রী আলেক্সেই কুদরিন প্রায়ই বলে থাকেন, তাহলে পরিস্থিতি খুবই দ্রুত পাল্টে যেতে পারে. (sound)