মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে স্বাক্ষর হতে যাওয়া স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা সংক্রান্ত নতুন চুক্তির মূল নীতি, যা এই চুক্তির আগে বিশেষ ভাবে দেখা হয়েছে তা হল সমান ও অখণ্ডিত নিরাপত্তা. মস্কোতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সের্গেই লাভরভ ঘোষণা করেছেন যে, সেই ভাবেই এই চুক্তিতে একটি স্ট্র্যাটেজিক ভারসাম্য বজায় রাখার মত দ্বিপাক্ষিক সমঝোতা করা সম্ভব হয়েছে, যে দিকে সকলেই যেতে চেয়ে ছিলেন.

    গত বছরে লন্ডনে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুই রাষ্ট্রপতির সাক্ষাত্কারের সময় ঠিক করা হয়েছিল যে একটি নতুন সার্বিক চুক্তির জন্য আলোচনা শুরু করা হবে. মে মাসেই আলোচনা শুরু হয়েছিল. নিরপেক্ষ এলাকা সুইজারল্যান্ডের জেনেভা শহরে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দলেরা দশ টির ও বেশী বৈঠকের পর চুক্তির প্রতিটি অক্ষর বিচার করে তৈরী করেছেন খসড়া. দিমিত্রি মেদভেদেভ ও বারাক ওবামা ব্যক্তিগত ভাবে এই বৈঠকের পরম্পরা নিয়ন্ত্রণ করেছেন, বিভিন্ন সময়ে একে অপরের সঙ্গে প্রয়োজনে টেলিফোনে যোগাযোগ করেছেন এবং প্রায়ই নিজেরা সোজা সুজি বৈঠকের আলোচনায় মত দিয়েছেন সবচেয়ে জটিল বিষয় গুলির সমাধানে. সব মিলিয়ে এই চুক্তির সমস্ত ধারা গুলিই সার্বিক ভাবে সাম্য বজায় করে করা হয়েছে. সের্গেই লাভরভ বলেছেন:

         "অস্ত্র সম্ভার কমানোর বিষয়ে যে কোন চুক্তির ক্ষেত্রেই, বিশেষত স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্র সজ্জা সংক্রান্ত নতুন চুক্তির মত এত গুরুত্বপূর্ণ চুক্তির ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক ভাবে সমঝোতায় আসার জন্য বহু জটিল ও একে অপরের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গি ভাবে যুক্ত বিষয়ের সম্বন্ধে বৈঠকের সময় প্রতিনিধি দলেরা তাঁদের মত প্রকাশ করে থাকেন. আর এই সময়ে সবচেয়ে দরকারি বিষয় হল, জাতীয় স্বার্থের ভারসাম্য বা যাকে বলা হয়ে থাকে স্ট্র্যাটেজিক ভারসাম্য তা বজায় রাখার জন্য সমস্ত প্রচেষ্টা করা. আমরা মনে করি যে, আমরা এটা করতে পেরেছি এবং এই রকম ভাবে আগে থেকে একে অপরকে বুঝতে পারলেই সবাই উপকৃত হতে পারবে".

             এই চুক্তির ফলে প্রতিটি দেশই তাদের স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্রসজ্জা এমন ভাবে কম করবে, যাতে চুক্তি কার্যকরী হওয়ার সাত বছর পরে আন্তর্মহাদেশীয় ভাবে  আক্রমণ করতে তৈরী এবং জলে ও জলের নীচে, স্থলে ও আকাশে বোমারু বিমানে রাখা নিক্ষেপ যোগ্য রকেট ও ব্যালিস্টিক মিসাইলের সর্ব মোট সংখ্যা ৭০০ হবে, ১৫৫০ টি বিস্ফোরণ যোগ্য বোমা এই রকেট গুলির জন্য থাকবে.

         প্রথম থেকে ধরা হয়েছিল যে, নতুন চুক্তি ৫ই ডিসেম্বর ২০০৯ সালের আগেই স্বাক্ষর করা সম্ভব হবে, যখন পূর্ববর্তী চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছিল. কিন্তু বেশ কিছু প্রশ্নের বিষয়ে আলাদা করে উত্তর তৈরী করতে হয়েছে. তাদের মধ্যে রয়েছে – স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক ও প্রতিরক্ষা মূলক অস্ত্রের মধ্যে সম্পর্ক নির্ণয়. রাশিয়ার পক্ষ থেকে এই মধ্যবর্তী সম্পর্কের কথা নতুন চুক্তিতে যোগ করার কথা অর্থাত্ তা আইন সঙ্গত ভাবে প্রমাণ অবশ্য প্রয়োজনীয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে. একই সঙ্গে ইউরোপে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবিত এক তরফা রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা বসানোর পরিকল্পনা রাশিয়ার পক্ষ থেকে উদ্বেগের কারণ বলে মনে করা হতেই পারে এবং যদি রাশিয়া দেখে যে তার উদ্বেগের সঙ্গত কারণ আছে, তবে তারা এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসবে বলে সের্গেই লাভরভ বলেছেন:

        "যখন দুই দেশের রাষ্ট্রপতিদের নির্দেশ মত রাশিয়া ও মার্কিন বিশেষজ্ঞদের মধ্যে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে বৈঠক চলছে, তখন এই ধরনের চমকে দেওয়ার মত বিষয় এড়ানো হয়ত যেতে পারত. খুব ভাল হত যদি দ্বিপাক্ষিক ভাবে উদ্বেগের কারণ গুলিকে আলোচনার মাধ্যমে প্রথমে স্থির করে তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হত যে, কি ধরনের প্রত্যুত্তরের ব্যবস্থা থাকা উচিত্. বাস্তবে এক তরফা ভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা বসানোর চেষ্টা করা হলে, রাশিয়া খুবই মনোযোগ দিয়ে দেখবে যে, এটা কতটা তার স্ট্র্যাটেজিক পারমানবিক শক্তির জন্য উদ্বেগের কারণ. এই চুক্তি দুই পক্ষের বর্তমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার কথা মাথায় রেখে, এই স্তরের কোন রকমের বদল হলে, যে কোন পক্ষই স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্র সজ্জা কমানোর বিষয়ে নিজেদের জাতীয় স্বার্থে এই চুক্তিতে যোগ দেওয়া ঠিক হবে কি না তা ভাববে. রাশিয়া অংশতঃ এই চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার অধিকার রাখবে, যদি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থার সংখ্যা ও গুণমান রাশিয়ার স্ট্র্যাটেজিক পারমানবিক শক্তির উপর যথেষ্ট রকমের প্রভাব ফেলে. বোঝাই যাচ্ছে যে আমরা রাশিয়াতে নিজেরাই ঠিক করব এই প্রভাবের মাত্রা".

        ৮ই এপ্রিল প্রাগে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতারা নতুন চুক্তিতে সই করতে চলেছেন, যেটি ওয়াশিংটন ও মস্কোর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক ভাবে সম্পূর্ণ সার্বিক ভাবে ভারসাম্য যুক্ত এক নতুন ধরনের চুক্তি, যা দুই দেশের মধ্যে বিশ্বাসের স্তরের উন্নতি করবে. সের্গেই লাভরভ যেমন মনে করেছেন যে, এই চুক্তি এপ্রিল মাস শেষ হওয়ার আগেই রাশিয়ার পার্লামেন্ট ও মার্কিন কংগ্রেসের কাছে পৌঁছবে তা গ্রহণের জন্য. <sound>