রাশিয়ার প্রশাসন মনে করেছেন জনগণকে নতুন সন্ত্রাস সংকেত দেওয়ার ব্যবস্থা চালু করার, প্রস্তাব করা হয়েছে এই কারণে রঙীণ বিপদ সংকেত মাত্রা চালু করার. এই ধরনের ব্যবস্থা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ও আরও বহু দেশে আছে.

    পাঁচটি মাত্রার প্রচার ব্যবস্থা রয়েছে – সবুজ, নীল, হলুদ, কমলা ও লাল. প্রতিটি রঙের আলাদা মানে আছে বিপদের বিবেচনা ক্ষেত্রে.

    সবুজ রং ও নীল রং কম মাত্রার বিপদের সূচনা করে, হলুদ মানে হল উদ্বিগ্ন হওয়ার মত ঘটনা ঘটেছে, সরকার সম্ভাব্য বিপদের কথা চিন্তা করে তার লক্ষ্য করার কাজ শুরু করে, কমলা মানে হল পরিস্থিতি গুরুত্বপূর্ণ এবং বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হতে থাকে. লাল রং এর অর্থ হল সন্ত্রাস বাদী হামলা হওয়া অবশ্যম্ভাবী.

    নতুন সংকেত ব্যবস্থা সহজেই লক্ষ্য করা যায় এবং মুহূর্ত কালের মধ্যে বহু লোককে এই বিষয়ে সচেতন করা যায়. এই সমস্ত রং ব্যবহার করে তথ্য প্রচারের জন্য সমস্ত রকমের তথ্য প্রচারের মাধ্যম, যেমন, বড় টিভি স্ক্রিনে, রেল স্টেশন, বিমান বন্দর, জাহাজ ঘাটা ও বাস স্টেশনের তথ্য প্রচারের স্ক্রিনে খবর দেওয়া হলে, সেই মুহূর্তে সমস্ত সংযুক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা দপ্তরের কর্মীরা সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা নিতে সক্ষম হবেন. এই রং ব্যবস্থার সঙ্গে তাদের কাজের বিষয়ে পরম্পরা নির্ণয় করা সম্ভবপর হবে. এই বিষয়ে রাশিয়ার লোকসভার নিরাপত্তা পরিষদের প্রধান মিখাইল গ্রিশানকোভ বলেছেনঃ

    "এই প্রস্তাবটি আগেও বিচার করা হয়েছে জাতীয় নিরাপত্তা ও সন্ত্রাস মোকাবিলা পরিষদের বৈঠকে. আমি মনে করি আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই এই বিষয়ে লোকসভাতে একটি বিল আনা হবে ও আমরা তা দ্রুত গ্রহণ করব. এই ধরনের মাত্রা নির্দেশক আসছে, সেখানে কয়েকটি সন্ত্রাসের মাত্রা নির্ধারণ করা হবে, তবে আমার মনে হয় আমাদের দেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত পাঁচ নয়, শুধু তিন রঙের সন্ত্রাসের মাত্রা নির্ধারণ গ্রহণ করা হবে".

    এই নতুন ব্যবস্থা নেওয়া পর্যন্ত বর্তমানে সঙ্কট ঘোষণার যে ব্যবস্থা আছে তাই চলবে, তার মধ্যে মাইক ব্যবহার করা, টিভি ও রেডিওতে খবর প্রচার, ইন্টারনেট ও অন্যন্য ইলেকট্রনিক প্রচার মাধ্যমের সাহায্যে প্রচার রয়েছে. মস্কো মেট্রোতে নিরাপত্তা বাড়ানোর জন্য অদূর ভবিষ্যতে মেট্রোর একটি স্টেশনে সর্বাধুনিক দেশী ও বিদেশী নিরাপত্তা ব্যবস্থা লাগিয়ে তার ফলপ্রসূ হওয়া পরীক্ষা করা শুরু হবে বলে রাশিয়ার বিপর্যয় নিরসন দপ্তরের মন্ত্রী সের্গেই শইগু জানিয়েছেন, তিনি বলেছেনঃ

    "আমরা আগামী তিন চার মাসের মধ্যে একটি বড় পাইলট প্রকল্প মস্কোর একটি মেট্রো স্টেশনে লাগিয়ে তার পরীক্ষা করব, যেখানে বর্তমানে বিশ্বে যত রকমের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যবস্থা আছে, তা লাগানো হবে".

    মন্ত্রীর কথা মতো, এপ্রিল মাসেই রাজধানীর মাটির নীচের যানবাহন ব্যবস্থার একটি অতি ব্যস্ত স্টেশন বেলোরুসস্কায়া তে রিং লাইনের মধ্যে খুবই সংবেদনশীল গ্যাস বিশ্লেষক লাগানো হবে. এই বিশ্লেষক যাত্রীদের সম্ভাব্য গ্যাস আক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করবে. এই ধরনের যন্ত্র অদূর ভবিষ্যতে অন্যান্য স্টেশনেও লাগানো হবে.

<sound>