রাশিয়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ন্যায় আন্তর্জাতিক কর্মসূচী “এক ঘন্টার পৃথিবী” পালন করেছে.এই কর্মসূচীর আয়োজন করে আন্তর্জাতিক পরিবেশ সংরক্ষন ফান্ড.কর্মসূচীর মূল বিষয়বস্তু ছিল জ্বালানি খরচকে কমিয়ে আনা.কর্মসূচীর ফলে রাশিয়া প্রায় ৩ হজার মেগাবাইট বিদ্যুত শক্তি অপচয় রোধ করেছে. রাশিয়ার এমন অনেক গ্রাম বা ছেট শহর যেমন সেরপুখব যেখানে মাত্র ১০ লাখ লোক বাস করে সেখানেও এই কর্মসূচি পালিত হয়.
শুধু রাশিয়া নয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজধানীতেও বেশ সাফল্যের সাথে এই কর্মসূচী পালিত হয়েছে.
রাশিয়াতে প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরক্ষন বিষয়ক এখন পর্যন্ত যতগুলো কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে তার মধ্যে সবথেকে বেশী সাড়া পরেছে “এক ঘন্টার পৃথিবী” কর্মসূচীতে.রাশিয়ার সাইবেরিয়ে,উরাল ও মধ্য রাশিয়ার সব জায়গায়ে এই কর্মসূচী পালনের খবর পাওয়া যায়.
শনিবার ঠিক রাত একটায় মস্কোর বিখ্যাত উঁচু ভবনসমূহ যেমন-মস্কো সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়(লামানোছোব),ক্রিড়া কমপ্লেক্স লুজনিকী,হোলেট ইউক্রেন এবং শাবোল্সকা রেডিও টাওয়ারের আলোর সুইচ বন্ধ করে দেওয়া হয়. প্রায় মোট ৭০টি প্রতিষ্ঠানে এ সময় অন্ধকার হয়ে পরে.এই ১ ঘন্টা নগরের অনেক অপ্রজনীয় বাতি নিভিয়ে দেয়া হয়. এ বছরে মোট ১২৫টি দেশের ৪ হাজার শহরে এই কর্মসূচী পালিত হয়েছে.
“এক ঘন্টার পৃথিবী” কর্মসূচী একই সাথে ফ্রান্সে,যুক্তরাজ্যে,ব্রাজিলে,জার্মানী এবং মিশরে পালন করা হয়.যুক্তরাষ্ট্রের লস-ভেগাসে আলো নিভিয়ে কর্মসূচীর সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়.

<sound>