২০২০ সালে মস্কো বিশ্বের এক বৃহত্তম বিনিয়োগ কেন্দ্র হতে পারে. বিশ্ব আন্তর্ব্যাঙ্ক আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত টেলি যোগাযোগ ব্যবস্থা সুইফট এর প্রেসিডেন্ট লাজারো কাম্পোস এই মত প্রকাশ করেছেন.

মস্কোকে বিশ্বের একটি অন্যতম বিনিয়োগ কেন্দ্রে পরিণত করার ধারণা একাধিক বার বলেছেন রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ ও প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন. এমন কি ২০০৯ সালে এই আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্র তৈরী করার বিষয়ে একটি সরকারি কাজের পরিকল্পনা পেশ করা হয়েছিল. দেশের অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বাজারের উন্নতি এবং রুশ রাজধানীর বিশাল পরিকাঠামো গত সুবিধাকে রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ সরাসরি এই রকম কেন্দ্রের মর্যাদার সঙ্গে যুক্ত করেছেন. মূল গত ভাবে, এই রকম কেন্দ্রের স্থিতিশীল কাজকর্মের ফলে দেশে বিনিয়োগ বৃদ্ধি হবে ও অর্থনীতির আধুনিকীকরণ সম্ভব হবে. আর এটা যদি হয়, তাহলে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনৈতিক ও বিনিয়োগ কাঠামো গুলি মস্কো ও তার আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্রকে ভরসার যোগ্য এবং দীর্ঘস্থায়ী সহযোগী বলে মেনে নেবে. সুতরাং দেখা যাচ্ছে যে, রুশ অর্থনীতিতে বিনিয়োগকে আর কোন রকম আশঙ্কার বিষয় বলে মনে হবে না. তার মধ্যে রুশ নেতৃত্ব ঘোষণা করেছেন যে, তাঁরা দীর্ঘস্থায়ী বিনিয়োগের বিষয়ে বেশী আগ্রহী, ফাটকা বাজদের ক্ষণস্থায়ী বিনিয়োগের জন্য নয়.

যদিও শুধু মাত্র আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্র সৃষ্টি হলেই তা রাশিয়ার জন্য বিশ্ব জোড়া অর্থনৈতিক কর্মসূচীর সমাধান করতে পারবে না. জানাই আছে যে, বিনিয়োগ সাধারণতঃ সেখানেই আসে, যেখানে কাজ করার উপযুক্ত লোকেদের পারিশ্রমিক বেশী দামী নয় এবং ব্যবসা করার জন্য স্থিতিশীল পরিবেশ আছে. আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্র সৃষ্টি করার জন্য এই শেষ কাজটি রাশিয়াতে করতে হচ্ছে, চাওয়া না চাওয়ার উর্দ্ধে উঠে, অন্যান্য কাজ গুলির সাথে একসাথে ও আইন সংশোধন করে. দুঃখের বিষয় হল রাশিয়া এই কেন্দ্র তৈরী করার পরিকল্পিত সময় সূচীর চেয়ে পিছিয়ে আছে, কারণ বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কট রাশিয়া ও সারা বিশ্বের জন্যই এক বিরাট প্লাবনের মত হয়েছে. কিন্তু প্রশাসন ধীরে হলেও ফিরে আসছে পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করতে.

বিশ্বের প্রথম সারির বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, মস্কোতে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্র তৈরী করার জন্য প্রযোজনীয় পরিস্থিতি বর্তমানে আবার বাস্তবে দেখা যাচ্ছে. প্রসঙ্গতঃ এর ফলে রাশিয়ার রুবলের দাম ও যথেষ্ট স্থিতিশীল হবে. সম্ভবতঃ ভবিষ্যতে রুবল শুধুমাত্র আঞ্চলিক ভাবে বিনিময় যোগ্য না থেকে সত্যিকারের নূতন আন্তর্জাতিক বিনিময় মুদ্রাতে পরিণত হবে. আজ আর গোপন নয় যে, ডলার, যা এতকাল এই ভূমিকা নিয়ে এসেছে, তা আর সমালোচনার উর্দ্ধে থাকা নিয়ামকের অবস্থায় নেই. আর সঙ্কট পরবর্তী কালের বাস্তব দাবী করেছে ভারসাম্য যুক্ত বিনিয়োগ কাঠামোর. এক দিকে বেশী ঝুঁকে থাকা আজ সকলের জন্যই বেশ বিপজ্জনক হয়ে পড়ছে.

আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কেন্দ্র তৈরীর জন্য আইনের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে আঞ্চলিক ব্যাঙ্ক গুলির যৌথ সংস্থার নেতা আনাতোলি আসকাকোভ উল্লেখ করেছেন যে, এই দিকে প্রাথমিক পদক্ষেপ এর মধ্যেই নেওয়া হয়েছে, তিনি বলেছেনঃ

আমাদের আইন ব্যবস্থা বিশ্বের অর্থনৈতিক আইন ব্যবস্থার চেয়ে পিছিয়ে আছে, আমাদের যা দরকার তা হল আইন গুলির মধ্যে একটি সঙ্গতি স্থাপন করা, এমন কি পশ্চিমের দেশ গুলির আইনের থেকে আরও বেশী ছাড় দিতে হতে পারে. অর্থনৈতিক বিনিময়ের কড়া নিয়ন্ত্রণের জায়গায় আমাদের এমন করতে হবে, যাতে রাশিয়ার মধ্যে কাজ করার বিষয়ে বিনিয়োগ কারী দের ও আর্থিক উত্স গুলির বেশী ইচ্ছা হয়.

বিশেষজ্ঞদের মত অনুযায়ী অদূর ভবিষ্যতে রাশিয়া শেয়ার বাজারে বাণিজ্যিক বিনিময়ে ও বিদেশী কোম্পানীদের ক্রীত শেয়ার ও বন্ড পেপারের পরিমানে বিশ্বের নেতৃ স্থানীয় দেশ গুলির একটি হতে পারে.

সুতরাং আন্তর্জাতিক ভাবে নেতৃত্ব দেওয়ার মত আর্থ- বাণিজ্য কেন্দ্র হতে পারলে, রাশিয়া বিনিয়োগ কেন্দ্র ও হতে পারে.

<sound>