জর্জ্জিয়ার টেলিভিশন চ্যানেল "ইমেদি" প্রচারিত অহেতুক উত্তেজনা সৃষ্টি কারী খবর নিয়ে স্ক্যাণ্ডাল এক নতুন পাক নিয়েছে. দেশে প্রচুর আলোচনা হয়েছে যে, সম্ভবতঃ এই অপ প্রচার করা হয়েছে মিখাইল সাকাশভিলির নিজের ও তার প্রশাসনের সমর্থনে.

মনে করিয়ে দেওয়া যেতে পারে যে, ১৩ই মার্চ "ইমেদি" প্রচার করেছিল যে, রাশিয়া জর্জ্জিয়া আক্রমণ করেছে এবং দেশের বিরোধী পক্ষ তা সমর্থন করেছে, রাষ্ট্রপতি সাকাশভিলি কে হত্যা করা হয়েছে. এই খবর দেওয়ার আগে একটি খুব ছোট বাক্যে বলা হয়েছিল যে, এটি সাজানো খবর, কিন্তু অধিকাংশ লোকই তাতে মনোযোগ দিতে পারেন নি এবং পুরো ব্যাপারটাকে সত্যি বলে ধরে নিয়েছিলেন. ফলে দেশের তবিলিসি শহরের বহু লোকের বাড়ী থেকে অ্যাম্বুলেন্স ডাকা হয়েছিল হঠাত্ করে নার্ভ হারিয়ে হার্ট অ্যাটাক হওয়াতে অসুস্থ হয়ে পড়া লোকেদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য এবং অনেকেই আতঙ্ক গ্রস্থ হয়ে পড়েছিলেন.

আর গতকাল জর্জ্জিয়ার সংবাদ মাধ্যমে এবং ইন্টারনেট ফোরামে একটি টেলিফোনের কথোপকথনের অংশ প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে "ইমেদি" টেলি চ্যানেলের প্রধান গিওর্গি আরভেলাদজের মত কন্ঠস্বরে কেউ একজন অন্য জনের সঙ্গে এই স্ক্যাণ্ডাল তৈরী করা প্রচারের খুঁটিনাটি নিয়ে আলোচনা করছে, এর সঙ্গে বলা হচ্ছে যে, এই অনুষ্ঠানে দর্শককে কাল্পনিক খবরের ব্যাপারে সাবধান করে দেওয়ার মত কোন সাব টাইটেল না দিতে এবং এই পুরো বিষয় নিয়ে মিশা নামক লোকের কাছ থেকে সমর্থন পাওয়া গেছে. মনে করিয়ে দিই যে, জর্জ্জিয়াতে রাষ্ট্রপতি সাকাশভিলি কে প্রায়ই মিশা নামে অভিহিত করা হয়ে থাকে. যদিও আরভেলাদজের তরফ থেকে এই প্রচার কে ভুয়া বলা হয়েছে তবুও জর্জ্জিয়ার বহু বিরোধী পক্ষের প্রতিনিধিরা একে সত্য প্রচার বলেছেন. তাঁরা বলেছেন, দেশের প্রশাসন ও তার প্রধানের মত না থাকলে এমন প্রচার করা সম্ভব হত না, বিশেষত এই চ্যানেলের স্বনামধন্য বিখ্যাত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক গিওর্গি তরগামাদজে এই বিষয়ে বলেছেনঃ

"এই চ্যানেলের বর্তমান প্রধান গিওর্গি আরভেলাদজে রাষ্ট্রপতির অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রাক্তন প্রধান, প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী. এর থেকে বলা যেতে পারে যে, এই প্রচার করার ধারণা টেলিভিশনের সাংবাদিকদের তৈরী করা নয়, অথবা কোন সম্পাদকের নয়, বরং জর্জ্জিয়ার প্রশাসনের সব চেয়ে উঁচু মহলে তা পাকানো হয়েছে".

প্রসঙ্গতঃ জর্জ্জিয়ার রাষ্ট্রপতি মিখাইল সাকাশভিলি এই প্রচার নিয়ে নিজের সন্তোষ প্রকাশ করা থেকে বিরত হন নি, তিনি বলেছেন এই প্রচার সত্য পরিস্থিতির সবচেয়ে কাছাকাছি. তবুও শনিবারে ইমেদি চ্যানেলের নেতি বাচক মানসিকতা বাড়ানোর প্রচারের ফলে শুধুমাত্র দেশের ভিতরে নয়, বরং বিদেশেও এই চ্যানেল ও দেশের প্রশাসনের জন্য কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা হয়েছে. রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যম ইমেদি চ্যানেলে আগে তোলা তাদের টেলিভিশন ছবি বেআইনি ভাবে ব্যবহারের জন্য মামলা তৈরী করছে আর জর্জ্জিয়ার বিরোধী পক্ষ সাকাশভিলি কে এই ঘটনার জন্য দায়ী করে তার কাছ থেকে বিচারের মাধ্যমে মানসিক ক্ষতির জন্য ক্ষতিপূরণ চেয়েছে. আজ তবিলিসি শহরের ট্রেড ইউনিয়ন প্রাসাদে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমানে বিরোধী পক্ষ ন্যায়ের জর্জ্জিয়া দলের প্রধান জুরাব নোগাইদেলি র আহ্বানে এক সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে, সেখানে সেই সব লোকেরা থাকবেন যাঁরা রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ভাল করতে চান. জর্জ্জিয়ার লেবার দলের লোকেরা আহ্বান করেছেন যে, মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা যেন সাকাশভিলির সঙ্গে দেখা না করেন, কারণ তা হলে নতুন উদ্যমে সাকাশভিলি অহেতুক উত্তেজনা ছড়ানো ও অপরাধের কাজ কারবার চালিয়ে যেতে থাকবে, যার ফলে জর্জ্জিয়াতে ও এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হবে.

<sound>