রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন রাশিয়া এবং পাঁচটি মধ্য এশীয় রাষ্ট্রের নেতাদের সাথে আফগানিস্তান থেকে নার্কোটিকের চোরা-চালানের বিরুদ্ধে সংগ্রামে মিলিত ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয় আলোচনা করতে চান. এ সম্বন্ধে সাধরণ সম্পাদক মস্কো সফরের প্রাক্কালে "রিয়া নোভস্তি" সংবাদ সংস্থাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেন. এ সফর হওয়ার কথা ১৭-১৯ই মার্চ. তাঁর কথায়, নার্কোটিকের চোরা-চালানের বিরুদ্ধে সংগ্রাম- আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা সুনিশ্চিত করার একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান. তিনি উল্লেখ করেন যে, রাশিয়া এ প্রজাতন্ত্রের সরকারকে যথেষ্ট সাহায্য করছে নার্কোটিক উচ্ছেদের ক্ষেত্রে. তাছাড়া, তিনি এ আশা প্রকাশ করেন যে, কাজাখস্তান, কির্গিজিয়া, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিয়া ও উজবেকিস্তানের নেতারাও এ লক্ষ্য সাধনে নিজেদের অবদান উপস্থিত করতে পারবেন. বান কি মুন এ সংগ্রামে একটি ব্যবস্থা হিসেবে অভিহিত করেন আফগানদের জন্য বিকল্প চাষের সম্ভাবনা প্রসার করা, যাতে তারা আফিং উত্পাদন না করা থেকে লাভ অনুভব করতে পারে. তাছাড়া, আফগানিস্তানে পরিস্থিতি ১৮ই মার্চ রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনার একটি বিষয় হবে. পৃথিবীতে মোট হেরোইনের ৯০ শতাংশ উত্পাদিত হয় আফগানিস্তানে. এ নার্কোটিক ব্যবহারের দিক থেকে সব দেশের মধ্যে রাশিয়া রয়েছে প্রথম স্থানে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের নার্কোটিক এবং অপরাধের হুঁশিয়ারী সংক্রান্ত বিভাগের ২০০৯ সালের রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, রাশিয়ায় নার্কোটিক আসক্তদের সংখ্যা বিগত দশ বছরে ১০ গুণ বেড়েছে.