রাশিয়াতে বায়ু ও রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা একটি একক ব্যবস্থাতে পরিণত হতে চলেছে. এই বিশাল কাজের জন্য দেশের প্রতিরক্ষা শিল্প ব্যবস্থাতে গভীর কাঠামো গত পরিবর্তন আনা হচ্ছে. এই বিষয়ে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন এই ব্যবস্থার উন্নতির বিষয়ে আয়োজিত বৈঠকে "সুখই" পরীক্ষা ও ডিজাইন ব্যুরো তে ঘোষণা করেছেন.

    প্রধানমন্ত্রীর কথা মতো, রকেট প্রতিরোধ ও বায়ু পথে হামলা প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে একক করবার জন্য রাশিয়াতে বিরাট বড় অনেক গুলি হোল্ডিং কোম্পানী তৈরী করা হয়েছে, এদের মধ্যে রয়েছে "যৌথ বিমান নির্মাণ কর্পোরেশন", "আলমাজ আন্তেই", "আবারনপ্রম" এবং "ট্যাকটিক্যাল রকেট অস্ত্র নির্মাণ" কনসার্ন গুলি. তাদের সামনে একটি বিশ্ব জোড়া কাজ রাখা হয়েছে, দেশের সামরিক বাহিনীকে নতুন সমরাস্ত্রে সজ্জিত করা, যা দিয়ে সমস্ত রাশিয়ার বায়ু সীমা লঙ্ঘণ করে যে কোন রকমের আক্রমণ প্রতিহত করা সম্ভব হবে. একক রকেট প্রতিরোধ এবং বায়ু পথে আক্রমণ প্রতিহত করার ভিত্তি মূলক অস্ত্র হবে আধুনিক রকেট ব্যবস্থা "এস – ৫০০", যা বর্তমানের "এস – ৪০০" "বিজয়" নামের রকেট ব্যবস্থার জায়গা নেবে. বর্তমানে "এস – ৪০০" কে মনে করা হয় সামরিক প্রযুক্তির সব চেয়ে উত্কৃষ্ট ব্যবস্থা, কিন্তু আলমাজ আন্তেই সংস্থার বিজ্ঞানীরা এখানেই থেমে থাকেন নি, তাঁরা "এস – ৫০০" নামের ব্যবস্থা তৈরী করছেন এবং আসা করা হচ্ছে আগামী ২০১৫ সালের মধ্যে তা তৈরী হয়ে যাবে. একেবারেই নতুন এই ব্যবস্থা নিজে থেকেই আকাশে যে কোন রকমের লক্ষ্য নির্ণয় করতে পারবে, তার থেকে কতটা বিপদ হতে পারে, তা বুঝতে পারবে এবং একসাথে দশটি অবধি লক্ষ্য ধ্বংস করতে পারবে.

"এস – ৫০০" ছাড়াও দেশের বায়ু মহাকাশ প্রতিরক্ষা বিভাগকে মহাকাশ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা দেওয়া হবে এবং রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা দেওয়া হবে. বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে,  রাশিয়া পুরো মাত্রায় ২০২০ সালের আগেই বায়ু মহাকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু করতে পারবে. রাশিয়ার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা অনুসন্ধান ইনস্টিটিউটের উপ প্রধান পাভেল জোলোতারিয়েভ রেডিও রাশিয়া কে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে বলেছেন যে, রাশিয়ার প্রতিরক্ষা শিল্প ব্যবস্থা বর্তমানে এই কাজ করবার জন্য তৈরী. সঙ্কটের সময়েও "এস – ৩০০" এবং "এস – ৪০০" তৈরী হয়েছে এবং কারখানার কাজ বন্ধ হয় নি.

এই দৃষ্টি ভঙ্গীর সঙ্গে রাশিয়ার বায়ু প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিষয়ক সংবাদ সাপ্তাহিকের প্রধান সম্পাদক সঈদ আমিনভ একমত হয়েছেন. বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে, পঞ্চম প্রজন্মের বায়ু ও রকেট প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বর্তমানে তৈরী করা সম্ভব এবং এই পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয়.

"বায়ু প্রতিরোধ ব্যবস্থার বর্তমানের চতুর্থ প্রজন্মের প্রযুক্তি পরিকল্পিত ও বাস্তবায়িত হওয়ার অপেক্ষায় থাকা পঞ্চম প্রজন্মের চেয়ে আলাদা. নতুন ব্যবস্থায় বায়ু ও রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে একসাথে করা সম্ভব হয়েছে. এর ব্যতিক্রম হল, বর্তমানে বেশীর বাগ ক্ষেত্রেই বিমান হানা থেকে রক্ষা করার ব্যবস্থা আছে, আর কিছুটা অপরিকল্পিত রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা রয়েছে. অর্থাত্ আড়াই হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত উড়ে যেতে পারে এই রকম ব্যালিস্টিক মিসাইলের থেকে রক্ষা করার ব্যবস্থা রয়েছে. নতুন ব্যবস্থা হলে তা নিকটবর্তী মহাকাশে লক্ষ্য ধ্বংস করতে পারবে. কারণ আজকের দিনে বিপদ শুধু আকাশ পথে নয় এমনকি মহাকাশের পথেও আসতে পারে".

এই নতুন বায়ু ও রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরী করতে নতুন দুটি উত্পাদন ব্যবস্থা তৈরী করতে হবে, এর মধ্যেই সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে. কারণ পঞ্চম প্রজন্মের জিনিস এর আগের সমস্ত রকমের ব্যবস্থার থেকেই আলাদা হবে – বিশেষত উদ্ভাবনী প্রযুক্তির দিক থেকে দেখলে. বর্তমানে এই ব্যবস্থা তৈরী হচ্ছে. প্রতিরক্ষার স্বার্থে দুটি ব্যবস্থাকে এক করার কাজ বাস্তবে প্রয়োজন.