এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলির নাবিক ট্রেড ইুনিয়নগুলি সুবিধাজনক পতাকা বাহীজাহাজগুলির বিরুদ্ধে আগ্রাসনী সংগ্রাম ত্যাগ করছে. এ সব জাহাজে সমস্ত সঙ্ঘর্ষমূলক পরিস্থিতি মীমাংসিত হবে জাহাজের মালিকের সাথে সভ্য আলাপ-আলোচনার কাঠামোতে. আজ এ সিদ্ধান্তে এসেছেন ট্রেড ইউনিয়নের নেতারা ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় আয়োজিত সম্মেলনে. রাশিয়ার নাবিক ট্রেড ইউনিয়ন প্রতিনিধিদলের নেতা নিকোলাই সুখানোভ জানান, ““সুবিধাজনক পতাকা বাহী জাহাজের বিরুদ্ধে সংগ্রাম জড়িত ছিল নাবিকদের বেতন আটকে রাখা, নাবিকদের অন্যান্য অধিকার লভ্ঘনের সাথে. আগে ট্রেড ইউনিয়নগুলি সুবিধাজনক পতাকা বাহী জাহাজের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পিকেট আয়োজন করত, প্রতিবাদ আন্দোলন চালাত, অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ করত, এখন সমস্ত সমস্যা মীমাংসিত হবে জাহাজের মালিকের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে.সুখানোভ এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলিতে নিজের সহকর্মীদের জানান যে, নাবিকদের কাজের শর্ত সংক্রান্ত স্বকীয় আন্তর্জাতিক আইন- নাবিক সংক্রান্ত যৌথ কনভেনশন ২০১২ সাল পর্যন্ত অনুমোদিত হওয়া উচিত. ২০১২ সালের পরে যে সব দেশের জাহাজ এই কনভেনশন গ্রহণ করবে না, তাদের বিরুদ্ধে বন্দরে ঢোকা ও বের হওয়ার ক্ষেত্রে বাধা স্থাপিত হতে পারে. এই এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলির নাবিক ট্রেড ইউনিয়নের স্মেলনে অংশগ্রহণ করছে বাংলাদেশ, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, চীন, কোরিয়া প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান ও জাপানের প্রতিনিধিদল.