ভারত পাকিস্তানের সাথে আলাপ-আলোচনায় কোনো মধ্যস্থের অংশগ্রহণের সম্ভাবনা প্রত্যাখান করেছে. এ সম্বন্ধে ঘোষণা করেছেন ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ. অ্যান্টনি. ভারতের হিন্দু পত্রিকা তাঁর বক্তব্য উদ্ধৃত করে লিখেছে, পাকিস্তানের সাথে আলাপ-আলোচনায় কোনো তৃতীয় দেশের অংশগ্রহণ আমরা সমর্থন করি না. ভারত-পাক সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রক্রিয়ায় চীনের অংশগ্রহণের সমর্থনে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশির মত প্রকাশের পরে অ্যান্টনির ঘোষণা ধ্বনিত হয়. চীনের আন্তর্জাতিক গবেষণা ইনস্টিটিউটে বক্তৃতা দিয়ে কুরেশি বলেন, ভারতের সাথে আমাদের সম্পর্কে উত্তেজনা দূর করায় চীন ইতিবাচক ভূমিকা পালন করতে পারে. তিনি জোর দিয়ে বলেন যে,ইস্লামাবাদ এ ব্যাপারে বিজিংকে পূর্ণ অধিকার দিচ্ছে. বৃহস্পতিবার ভারতের রাজধানীতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিবদের পর্যায়ে ভারত ও পাকিস্তানের আলাপ-আলোচনা পরিকল্পিত. ২০০৮ সালের নভেম্বরে মুম্বাইয়ে পাকিস্তানী জঙ্গীদের আক্রমণ উপলক্ষে, যার ফলে ১৬৬ জন নিহত হয়েছিল, নয়া দিল্লি ইস্লামাবাদের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থগিত রেখেছিল, তার পরে দু দেশের পররাষ্ট্র বিভাগের প্রতিনিধিদের মাঝে এটি হবে প্রথম সরকারী সাক্ষাত্. ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস.এম. কৃষ্ণার কথায় আলাপ-আলোচনার মুখ্য বিষয় হবে পাকিস্তানের ভূভাগ থেকে আসা সন্ত্রাসবাদের বিপদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম. অ্যান্টনি জোর দিয়ে বলেন, আলাপ-আলোচনায় অন্য কোনো দেশের অংশগ্রহণ আমাদের পক্ষে গ্রহণযোগ্য নয়.