২৮ শে ফেব্রুয়ারী ভারতের বিমান বাহিনীর প্রশিক্ষণ মূলক উড়ান বায়ু শক্তি অনুষ্ঠানে রাশিয়ার তৈরী মিগ – ২৭ বিমান কে অংশ গ্রহণ থেকে বিরত রাখা হয়েছে, গত কয়েক দিন ধরে এই বিমানের পরপর কয়েকটি দূর্ঘটনা ঘটার পর এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে ভারতের বিমান বাহিনীর প্রতিনিধি ইন্টারফ্যাক্স সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছে.

    ১৬ই ফেব্রুয়ারী এই ধরনের একটি বিমানের দেশের পূর্ব্বে পশ্চিমবঙ্গের হাসি মারা বিমান ঘাঁটিতে দূর্ঘটনা জনিত পতনের প্রাথমিক কারণের পরীক্ষার পর কর্তৃত্ব বর্তমানের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে প্রতিনিধি জানিয়েছেন.

    সরকারি তথ্য অনুযায়ী, ২০০১ সালের জানুয়ারী মাস থেকে ভারতের বিমান বাহিনী এখন অবধি ১২ টি ফাইটার প্লেন দুর্ঘটনার কারণে হারিয়েছে, সাংবাদিক সম্মেলনে দেশের বিমান বাহিনীর সর্বাধিনায়ক মার্শাল মেজর প্রদীপ নায়ক জানিয়েছেন যে, এই মিগ – ২৭ বিমান দুর্ঘটনার কারণ হিসাবে বিমানের এঞ্জিনের টারবাইনের গোলযোগ বলে মনে করা হয়েছে. এই কারণটি ভারতে ঘটা বিমান দুর্ঘটনার কারণের মধ্যে পড়ে, কারণ বিমান উড়ানের সময় প্রায়ই এঞ্জিনের টারবাইনের মধ্যে পাখী ঢুকে পড়ায় এই বিপত্তি ঘটে থাকে. সামরিক বিশেষজ্ঞদের রিপোর্ট অনুযায়ী ধ্বংস হওয়া বিমানটির টারবাইনের একটি পাখা ক্ষতিগ্রস্থ ছিল. সাধারণতঃ এই রকম ঘটে বিমানে অন্য কোন বিজাতীয় জিনিস ঢুকে পড়লে.

    বর্তমানে ভারতের বিমান বাহিনীতে এই ধরনের বিমানের সংখ্যা প্রায় ১০০ টি. সব কটি বিমানই কারণ অনুসন্ধান শেষ হওয়া পর্যন্ত উড়ান বন্ধ করে রাখা হয়েছে. অন্যান্য বিমান বাহিনীর প্রযুক্তি, যা বর্তমানে ভারতে রাশিয়ার লাইসেন্সে তৈরী হচ্ছে, সে গুলি এই প্রশিক্ষণে সম্পূর্ণ ভাবে শুধু অংশই নেবে না, বরং প্রধান আক্রমণের হাতিয়ার হবে.