পাঁচ বছর আগে কমলা বিপ্লবে ভাগ হয়ে যাওয়া দেশকে এক কররা জন্য এই নির্বাচনে প্রথম পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে ঘোষণা করেছেন বিরোধী প্রাদেশিক দলের নেতা ভিক্তর ইয়ানুকোভিচ, যিনি আপাততঃ ঘমনা করা ভোটের হিসাবে ও এক্সিট পোলের পরিসংখ্যানে ইউক্রেনে পরবর্তী রাষ্ট্রপতি পদের জন্য মনোনীত হয়েছেন. দেশের বিভিন্ন পূর্ব ও পশ্চিমের অঞ্চলে ভোটে দেখা গিয়েছে রাজনৈতিক পছন্দের মেরু সমান বিভাগ. রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ৮০, ০৪ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হওয়ার পর সোমবার সকালে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের খবরে প্রকাশ প্রাদেশিক দলের নেতা ভিক্তর ইয়ানুকোভিচ এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইউলিয়া তিমোশেঙ্কোর মধ্যে ব্যবধান মাত্র ৩, ০১ শতাংশ. ঘণনা শুরু হওয়ার সময়ে প্রথমে এই ব্যবধান ছিল প্রায় ১৩ শতাংশ. ছয়টি সংস্থা আয়োজিত এক্সিট পোলের হিসাবে প্রাদেশিক দলের নেতা প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে ২, ৮ থেকে ৬, ২ শতাংশ ভোটে এগিয়ে আছেন. শেষ পর্যন্ত পাওয়া নির্বাচন কমিশনের খবরে প্রকাশ ইয়ানুকোভিচ পেয়েছেন ৪৮, ৬৭ শতাংশ এবং তিমোশেঙ্কো পেয়েছেন ৪৫, ৬৬ শতাংশ ভোট. দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে জিততে হলে প্রয়োজন সাধারন ভাবে সবচেয়ে বেশী ভোট পেলেই চলে. কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের খবর অনুযায়ী সবার বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন ৪, ৪৮ শতাংশ লোক.