রাশিয়ার লোকেদের সবচেয়ে আনন্দ উত্সব নববর্ষ বরণের আর মাত্র কয়েকদিন বাকী. ২৬শে ডিসেম্বর নববর্ষ উত্সবের শুরুর ঘোষণা করেছেন দেশের প্রধান সান্টা ক্লস বা তুষার দাদু. ভেলিকি উস্তুগ শহরের শীতের জাদুকর আর কস্ত্রোমা থেকে তাঁর নাতনী স্নেগুরোচকা বা তুষার কণাকে নিয়ে রাশিয়ার রাজধানীর প্রধান চত্বর মানেঝ স্কোয়ার থেকে নববর্ষের যে ঘোষণা দিয়েছেন, তা মস্কোর ও এখানে আসা অতিথি ছোট বড় হাজার লোক হর্ষ ধ্বনি করে স্বাগত জানিয়েছে.

    অনেক গুলি দেশ এবং রাশিয়ার ভিতরে অনেক দূরত্ব পাড়ি দিয়ে তুষার দাদু ক্রেমলিনের প্রধান স্কোয়ারের সবচেয়ে বড় ফার গাছের গায়ে লাগানো বাতি জ্বালিয়ে উত্সবের উদ্বোধন করতে এসেছেন. তুষার কণার সাথে তুষার দাদু বড় ও ছোট বাচ্চাদের সাথে দেখা করছেন, বড়রাও এই সময়ে ছোট হয়ে যায়. আর সবাই যখন তুষার দাদুকে প্রশ্ন করল যে, ২০১০ সাল কি এই বছরের চেয়ে ভাল কাটবে, তখন তিনি এক কথায় বলেছেন নিশ্চয়ই.

    এই বছর খুব সাধারন কাটে নি, নিজেরা সবাই দেখতে পাচ্ছেন অর্থনৈতিক সঙ্কট, ইনফ্লুয়েঞ্জা কত কি হল, কত জল বয়ে গেল, কত গুরুত্বপূর্ণ আর উজ্জ্বল ঘটনা ঘটে গেল. কিন্তু সব চেয়ে বড় কথা হল, বিশ্বে উষ্ণতা বা করুণা কিন্তু কমে নি. আর তাই আমাদের সবার আশা থাকবে ভালর…

    অবশ্যই তুষার দাদু সাংবাদিক দের দেখতে পেয়ে তাদের সামনে শুধুমাত্র মস্কোর লেক বা রাশিয়ার লোকেদেরই নয়, বরং সারা বিশ্বের লোকেদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেনঃ

    "আমার প্রিয় বন্ধুরা, নববর্ষের প্রারম্ভে আপনাদের সংগে কথা বলতে পেরে আমি খুশী, আমার প্রিয় মানুষেরা, করুণা, ভালবাসা আর পারস্পরিক বোঝার ইচ্ছাকে লালন করুন. কারণ এই গুণ গুলিই মানুষকে আশ্চর্য রকমের শক্তিশালী করে. আপনাদের সবার নতুন বছর ভাল কাটুক, শুভেচ্ছা সহ রাশিয়ার তুষার দাদু".

    অন্য বারের মত এ বারেও তুষার দাদুর আগমনে ক্রেমলিনের সম্মেলনের প্রাসাদে সারা রাশিয়ার নতুন বছরের উত্সব হবে, যাকে সাধারণতঃ বলা হয়ে থাকে রাষ্ট্রপতির নববর্ষ উত্সব. এই বছরে ক্রেমলিনের উত্সবে সারা দেশের প্রায় পাঁচ হাজার বাচ্চা আসবে. এই উত্সবের জন্য তাদেরই বাছা হয়, যারা সারা বছর ভাল করে পড়েছে, ভাল কাজ করেছে. নানা রকমের প্রতিযোগিতার সেরা হয়েছে. এ ছাড়া থাকবে অনাথাশ্রমের বাচ্চারা, যে সব ছেলে মেয়ের বাবা যুদ্ধে বা সামরিক বাহিনীর কাজ করতে গিয়ে মারা গিয়েছে তারা. দিনের বেলায় বাচ্চারা মস্কোর দর্শনীয় জায়গা গুলি দেখে বেড়াবে, আর বিকেল বেলা ক্রেমলিনের প্রাসাদে তাদের সঙ্গে দেখা হবে তুষার দাদু আর তুষার কণার. সেখানে হবে নানারকমের মজার খেলা, নাচ গান, মজার প্রতিযোগিতা. তারপর বাচ্চাদের নতুন বছরের অনুষ্ঠান দেখানো হবে, এক অপরূপ অনুষ্ঠান, সঙ্গীত, নৃত্য ও নানা বাহারী পোষাকের বৈচিত্রে. অনুষ্ঠানের শেষে প্রত্যেক শিশু অতিথি পাবে তুষার দাদুর কাছ থেকে নতুন বছরের উপহার.

    রাশিয়ার প্রধান তুষার দাদুর সামনে নববর্ষের আগের দিনগুলি খুবই গরম, "এত সব কাজ আছে – বলে প্রত্যেক বারের মতই দীর্ঘশ্বাস ফেলছেন তুষার দাদু, আর সামনের কয়েক দিনের পরিকল্পনার কথা বলছেন – আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের মহাকাশচারী দের সঙ্গে অবশ্যই কথা বলব, তাদের নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে হবে. আর সব চেয়ে যেটা জরুরী তা হল, রাশিয়ার সব বাড়ীতে, যেখানেই লোকে ছোট বড় সবাই তুষার দাদুকে বিশ্বাস করে, সেখানেই আমি অবশ্যই যাবো".