কোপেনহেগেন শহরের বিশ্ব পরিবেশ সম্মেলনে বিবাদ সঙ্কুল অবস্থা ঘনিয়ে এসেছে. এই সম্মেলনে উন্নত ও উন্নতিশীল দেশগুলির প্রতিনিধিদের মধ্যে কিছুতেই সহমতে আসা সম্ভব হচ্ছে না. শেষ আশা যদি দেশ গুলির নেতারা যাঁরা এই সম্মেলনে যোগ দিতে আজ কালের মধ্যে আসছেন, তাঁরা যদি কোন ভাবে সহমতে পৌঁছতে পারেন. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ আজ রাষ্ট্রসংঘ আয়োজিত পরিবেশ সংরক্ষণ সম্মেলনের সরকার প্রধান এবং দেশ নেতাদের শীর্ষ বৈঠকে যোগ দিতে কোপেনহেগেন যাচ্ছেন. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা ও এই সম্মেলনের বৈঠকে যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন.

উন্নত এবং উন্নতিশীল দেশগুলির মধ্যে তর্কের মূল কারণ হল, শেষের দল চাইছে কিয়োটো প্রোটোকলের সরল দীর্ঘায়িতকরণ, যার ফলে গ্রীন হাউস এফেক্টের কারণ বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইড দূষণের দায়ভার শুধু উন্নত দেশ গুলিই নেয়. নিজেদের পক্ষে উন্নত দেশ গুলি, রাশিয়াও তাদের মধ্যে আছে, বলছে যে, ভবিষ্যতের চুক্তিতে সবার জন্য সমান দায়িত্বের ব্যবস্থা করতে, বিশেষত দ্রুত উন্নতিশীল দেশ গুলির ক্ষেত্রেও. এই কারণে পর্যবেক্ষকেরা এই সম্মেলনের শেষের শীর্ষ বৈঠকের সিদ্ধান্তের দিকে আশা নিয়ে তাকিয়ে আছেন.

কোপেনহেগেন যাওয়ার আগে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ এই সমস্যা নিয়ে নিজের প্রশাসনের সদস্যদের সঙ্গে বিশদ ভাবে আলোচনা করেছেন, সরকার এবং রাশিয়ার বৃহত্ জ্বালানী শক্তি উত্পাদক কোম্পানী এবং বিজ্ঞানীরাও বাদ পড়েন নি. এ ছাড়া নিজের ভিডিও ব্লগে তিনি শেষ একটি আহ্বান যোগ করেছেন, যেখানে বলেছেন সমস্ত দেশের সহযোগিতা বিশ্বের পরিবেশের পরিবর্তন রোধ করার জন্য অত্যন্ত আবশ্যিক.

এর ওপরে কয়েকজন বিশেষজ্ঞ দিমিত্রি মেদভেদেভের সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময় বিশ্বের আবহাওয়ার পরিবর্তন নিয়ে বর্তমানের পরিস্থিতিকে সন্দেহ জনক বলে মনে করেছেন, কারণ সত্য উষ্ণতা বৃদ্ধির পরিমাপ খুবই বিতর্কিত. কিন্তু রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি মনে করেন যে, কিয়োটো প্রোটোকলের পরবর্তী চুক্তি বিজ্ঞানীরা পরিবেশ পরিবর্তন নিয়ে যাই মনে করুন না কেন, সমস্ত দেশের জন্যই প্রয়োজনীয়. তিনি বলেছেনঃ

"যদি বিশ্বের আবহাওয়া পরিবর্তন নিয়ে বর্তমানের যে সমস্ত ধারণা আছে, তা যদি প্রমাণিত নাও হয়, তাহলেও আমরা কম করে বলতে হলে কিছুই হারাচ্ছি না, কারণ আমরা শক্তি সংরক্ষণ ও পরিবেশের উন্নতির জন্য কাজই করছি. এটা ভাল, কারণ এটা আমাদের দায়িত্বের অংশ. কিন্তু যদি, ভগবান না করেন যেন এমন হয়, বিজ্ঞানীরা এখন যা বলছেন, তা অন্য সুরে বললেও, সত্যই হয়, তাহলে তখন আমাদের এই কাজ অবশ্যই করতে হবে. সুতরাং আমরা এদিকেও জয় করছি এবং অন্যদিকেও".

যে কোন ক্ষেত্রেই রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ খুবই দাম দিয়েছেন কোপেনহেগেন শহরের এই পরিবেশ সংক্রান্ত সম্মেলনকে. তিনি বিশ্বাস করেন যে, সেখানে যে ফলই পাওয়া যাক না কেন, খুবই নীতিগত ভাবে সঠিক হল বাস্তব, যা বিশ্বের প্রায় ১২০ টি দেশের নেতা ও সরকার প্রধানদের এক জায়গায় করবে. যাতে তাঁরা একসাথে পরিবেশ সংরক্ষণ ও নিরাপত্তার বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার পথ খুঁজতে পারবেন, ক্রেমলিনে কয়েকটি দেশের নূতন রাজদূতদের পরিচয় পত্র গ্রহণ অনুষ্ঠানে উনি এই ঘোষণা করেছেন. দিমিত্রি মেদভেদেভ মনে করেন যে, আন্তর্জাতিক সমাজের সম্মিলিত দায়িত্বের একটি অন্যতম লক্ষ্য হল পরিবেশ সংক্রান্ত নিরাপত্তা বজায় রাখা. রাশিয়ার পরিবেশ সংক্রান্ত দলিল ও এই কাজের জন্য তৈরী হয়েছে, যা রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর করেছেন কোপেনহেগেন সম্মেলনে যোগ দেওয়ার অব্যবহিত আগে.

<sound>