রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন মনে করেন যে, সন্ত্রাসবাদের বিপদ এখনও খুবই বেশী, কিন্তু তা প্রতিরোধ করা সম্ভব. যদি ফলপ্রসূ ও বিপদের আগেই প্রতিরোধ করার কাজ চালু করা যায়. বাত্সরিক জনগনের সঙ্গে সরাসরি সওয়াল জবাবের সময় তিনি এই ঘোষণা করেছেন.

মনে করিয়ে দেওয়া যেতে পারে এই নিয়ে অষ্টম বার সরাসরি জনগনের প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন ভ্লাদিমির পুতিন, প্রথমে রাষ্ট্রপতি হিসাবে, বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে. প্রথম যে প্রশ্ন তাঁকে করা হয়েছে তা ছিল গত কয়েকদিন আগের নেভস্কি এক্সপ্রেস বিস্ফোরণ নিয়ে, যে বিস্ফোরণের ফলে ২৬ জন নিহত হয়েছেন. ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন — "আমরা সন্ত্রাসবাদের পাঁজর ভেঙে দেওয়ার মত অনেক কিছু করেছি, কিন্তু বিপদ এখনও আছে". "আমি ও আমার সহকর্মীরা সবসময়ই বলে এসেছি যে, বিপদ এখনও বিশাল. সারা বিশ্বে বর্তমানে সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে লড়াই চলেছে এবং সারা বিশ্বের নানা দেশে আমরা এই বিপদের সামনে পড়ছি". পুতিনের কথা মতো রাশিয়া এ ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ব্যতিক্রমই নয়. রাশিয়ার ২০০০ থেকে ২০০৮ সাল অবধি রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করা ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন —  "আমি মনে করি আমাদের দেশ সবসময়ই সন্ত্রাসবাদের শিকার ছিল এবং আছে, বিশেষত নব্বই দশকের মধ্য ভাগ থেকে এবং ২০০০ সালের প্রথম থেকেই". এই বিপদের সঙ্গে লড়াই করতে গেলে সকলকে সতর্ক হতে হবে. আর অবশ্যই বিপদ ঘটার আগে বিপদ নিরসনের জন্য কাজ করতে হবে. পরিকাঠামোর ক্ষেত্রে এই ধরনের বিপদ এড়ানো খুবই কঠিন, তাই যা করার তা করতে হবে আগে থেকেই. এ ক্ষেত্রে তিনি জাতীয় গুপ্তচর সংস্থা ও স্বরাষ্ট্র দপ্তরের নিরাপত্তা বাহিনীর কাজকে প্রশংসা করে বলেছেন যে, তাঁরা অনেক সাফল্য পেয়েছেন ও পাচ্ছেন. কিন্তু গত কয়েকদিন আগে ঘটা ট্র্যাজেডি মনে করিয়ে দিচ্ছে যে, এই কাজ আরও বেশী করে করতে হবে. অপরাধীদের সঙ্গে খুবই কঠোর হতে হবে, যারা এই সব কাজ করে থাকে, মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্য নিয়ে খেলা করে তাদের সঙ্গে. এই বিষয়ে আমাদের কঠোরতা ও সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা যথেষ্ট বলে প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন জনগনকে আশ্বস্ত করেছেন.

বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের মোকাবিলা করার জন্য নির্দিষ্ট কাজ সম্বন্ধে প্রধানমন্ত্রীকে কয়েকটি প্রশ্ন করা হয়েছিল. বর্তমানে সন্ত্রাসবাদের মত এটি আরেকটি বড় বিপদ. সরাসরি জবাব দিতে গিয়ে ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন – গত দশ বছরের মধ্যে গত বছর ছিল সব চেয়ে কঠিন বছর. শুধুমাত্র আমাদের জন্যই নয়, বরং সারা বিশ্বের অর্থনীতির জন্যই. একই সঙ্গে যথেষ্ট আত্ম বিশ্বাসের সঙ্গে বলা যেতে পারে যে, এই সঙ্কটের তলদেশ পার হয়ে আসা গেছে, যদিও বিশ্ব অর্থনীতিতে ফল হিসাবে এখনও অনেক বিষয় রয়েছে. রাশিয়াতেও তাই এর ফল দেখা যাচ্ছে. এই সঙ্কট থেকে বের হতে গেলে আরও অনেক শক্তি, অর্থ এবং সময়ের প্রয়োজন. কিন্তু সব মিলিয়ে এখন উন্নতির লক্ষণ দেখা যাচ্ছে. অংশতঃ এই বছরে দেশের শিল্পোত্পাদনে পতনের হার হবে যা ধারণা করা হয়েছিল তার চেয়ে কম. কিন্তু কয়েকটি বিষয়ে যেমন, সামরিক উত্পাদনে বা রকেট ও মহাকাশ সংক্রান্ত প্রযুক্তি উত্পাদনের ক্ষেত্রে দেখা যাবে লক্ষ্যনীয় উন্নতি হয়েছে. রাশিয়াতে মানুষের আয় গত ২০০৮ সালের মতই রাখা সম্ভব হয়েছে. বলে পুতিন ঘোষণা করেছেন. আর বাজেট থেকে যাঁরা রোজগার করেন, সেই সরকারি কর্মচারীদের আয় বরং বেড়েছে. রাশিয়াতে জন্মের হার রেকর্ড পরিমান বৃদ্ধিকে পুতিন বলেছেন দেশের লোকের উন্নতিতে বিশ্বাসের লক্ষণ বলে, আর মৃত্যুর হার কমাও তা সমর্থন করে. এই রকম ইতিবাচক মনোভাব আজকের দিনে সব চেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বলে বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন ভ্লাদিমির পুতিন তাঁর জনগনের সঙ্গে সরাসরি টেলিভিশনে সওয়াল জবাবের সময়.