দাগেস্তানে উত্তর ককেশাস রেলওয়ে লাইনের যে অংশ দিয়ে ত্যুমেন – বাকু ট্রেন যায়, সেখানে সোমবার সকালে একটি বিস্ফোরণ হয়েছে. কোন আহত বা ক্ষতিগ্রস্থ লোকের কথা শোনা যায় নি. বিশেষ কর্মীরা এর মধ্যেই রেল লাইন ঠিক করে পাতার কাজ শুরু করেছে. এই খবর দেওয়ার সাথে সাথেই সংবাদ সংস্থা খবর দিয়েছে যে, মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গের মধ্যে ট্রেন চলাচল আবার স্বাভাবিক হয়েছে. প্যাসেঞ্জার ওয়াগনে আবারও তিল ধারণের জায়গা নেই. এমন কি অশুভ নেভস্কি এক্সপ্রেস ট্রেনের আগামী এক সপ্তাহের সব টিকিট বিক্রী হয়ে গেছে.

শুক্রবার রাত্রে সন্ত্রাস বাদী হানার পর, শনিবারে অনেক যাত্রীই নেভস্কি এক্সপ্রেসের টিকিট ফেরত দিতে তাড়াহুড়ো করেছিলেন. সবাই এই ঘটনায় খুবই ভয় পেয়েছিলেন ও আতঙ্কিত ছিলেন. অবশ্য অনেকেই তাদের যাত্রা স্থগিত রেখেছিলেন যে কারণে সেটা হল মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গের মধ্যে ট্রেন চলাচল করছিল ঘুরপথে, তাই যাত্রাপথে প্রায় ৬ থেকে ৮ ঘন্টা বেশী সময় লাগছিল, তাই সপ্তাহান্তে যারা অন্য শহরে বেড়াতে যাবেন ভেবেছিলেন, তারা আর যান নি. রেলওয়ের কর্মীরা একটুও না থেমে এই সময়ে কাজ করে গেছেন, দুর্ঘটনার একদিন পরেই একটি লাইন দিয়ে ট্রেন চলাচল সম্ভব হয়েছিল আর রবিবারে দ্বিতীয় লাইন কাজ করতে শুরু করেছে. বর্তমানে দুটি রাজধানীর স্টেশনের মধ্যে ট্রেন চলাচল বিনা বিলম্বে চলছে. বর্তমানে দুর্ঘটনা স্থলের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ট্রেন গুলি দীর্ঘ হুইশিল বাজিয়ে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছে.

এই দুর্ঘটনাতে ২৫ জন নিহত হয়েছেন, ২৪ জনকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে. রবিবারে তভের শহরের মর্গ থেকে নিহত দের দেহ সেন্ট পিটার্সবার্গে আনা হয়েছে, যেখান থেকে তাঁদের নিকটাত্মীয়েরা শবদেহ নিয়ে যেতে পারবেন. সোমবার প্রথম কবর দেওয়া শুরু হতে চলেছে. আজ দুর্ঘটনার পর যে ৯২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল, তাদের মধ্যে কিছু লোক ছাড়া পাবেন. এখনও স্থায়ী কঠিন অবস্থায় ২১ জন আহত রয়েছেন. সকলকেই মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গের সেরা হাসপাতাল গুলিতে রাখা হয়েছে. বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রণালয়ের ইন্টারনেট সাইটে তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে, কে কোন হাসপাতালে রয়েছেন.

বেশীর ভাগ দুর্ঘটনা গ্রস্থ দেরই বিনা পরিচয় পত্রে হাসপাতালে আনা হয়েছে বলে জানা গিয়েছিল, তাই এই তালিকা প্রকাশে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছে. প্রথমে অনেক যাত্রীই নিখোঁজ বলে ঘোষণা করা হয়েছিল, বর্তমানে চারজন যাত্রীর খোঁজ করা হচ্ছে, তাঁরা নিহত হয়েছেন অথবা নিজেরাই বাড়ী ফিরে গিয়েছেন কিনা পুলিশের পক্ষ থেকে দেখা হচ্ছে. অশুভ এক্সপ্রেসের যাত্রী এবং জনতার জন্য একটি হট লাইন চালু করা হয়েছে, যাতে এই বিষয়ে অনুসন্ধানের কাজে সবাই খবর দিতে পারে.

যে ব্যক্তি এই সন্ত্রাস কার্যকরী করেছে বলে মনে করা হচ্ছে তার একটি ফোটো রোবট তৈরী করা সম্ভব হয়েছে. স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রধানের ঘোষণা মত অপরাধীরা অনেক গুলি চিহ্ন রেখে গেছে, যা অনুসন্ধানে সাহায্য করবে. এই সব খুঁটিনাটি বর্তমানে বিশেষ বাহিনী বিশদ করে বলতে চায় না. যদিও দুর্ঘটনার অব্যবহিত পরেই অকুস্থলের কাছাকাছি সমস্ত বাড়ীর লোকেদের জেরা করা হয়েছে ও ঘটনা স্থল খুঁটিয়ে দেখা হয়েছে, তাও এখনও সেই অঞ্চল থেকে ঘেরাও তুলে নেওয়া হয় নি. দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া ওয়াগন গুলিকে বন্ধ করে রাখা হয়েছে, যাত্রীদের জিনিস পত্র জড়ো করে সেন্ট পিটার্সবার্গে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে. সোমবার থেকে সেখানে এই সব জিনিস ফেরত দেওয়া শুরু হবে.

একই সঙ্গে দুর্ঘটনাতে যাঁরা মারা গিয়েছেন ও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন, তাঁদের পরিবারকে ও তাঁদেরকে কত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে তা ঘোষিত হয়েছে. রাশিয়ার রেলওয়ে কোম্পানীর পক্ষ থেকে ৫ লক্ষ ও ২ লক্ষ রুবল করে. প্রশাসন আলাদা করে অর্থ সাহায্য করবে বলে স্বাস্থ্য ও সামাজিক উন্নতির মন্ত্রী তাতিয়ানা গোলিকভা জানিয়েছেন. তিনি বলেছেনঃ

"আমাদের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে এক কালীণ ৩ লক্ষ রুবল করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত্, এ ছাড়া পারলৌকিক ক্রিয়ার খরচ ও দেওয়া উচিত্ হবে. যে সব নাগরিকেরা এই দুর্ঘটনাতে গুরুতর ভাবে আহত হয়েছেন, তাঁদের ১ লক্ষ রুবল করে ও সামান্য আহতদের ৫০ হাজার রুবল করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত হবে বলে মনে করা হয়েছে".

সময়মত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কাজের দায়িত্বে সরকারের দুর্ঘটনা প্রতিকার পরিষদ বহাল হয়েছে. এই পরিষদের নেতৃত্বে উপ প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর জুবকভ রয়েছেন, তিনি উল্লেখ করেছেন যে, এই কমিশন ততক্ষণ পর্যন্ত কাজ করবে, যতক্ষণ না দুর্ঘটনার সঙ্গে জড়িত সমস্ত প্রশ্নের সমাধান হয়. প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন নির্দেশ দিয়ে বলেছেন যে, বিশেষ মনোযোগ সেই সমস্ত মানুষদের জন্য দেওয়া উচিত্, যাঁরা এই দুর্ঘটনাতে জড়িয়ে পড়েছেন.

একই সঙ্গে দেশে সবাই দুর্ঘটনাতে নিহত ও আহতদের পরিবারের সঙ্গে শোক প্রকাশ করছে, টেলিভিশনের চ্যানেল গুলি তাদের প্রোগ্রাম বদল করেছে, সেখান থেকে আনন্দের অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে. রবিবারে রাশিয়ার সমস্ত খেলাধূলার আসরে এক মিনিট নীরবতা দিয়ে শুরু করা হয়েছে, আর সোমবার আগামী ২০১৪ সালের শীত অলিম্পিকের প্রতীক প্রকাশের যে অনুষ্ঠান মস্কোর রেড স্কোয়ারে করার কথা হয়েছিল, তা আপাততঃ মুলতবি রাখা হয়েছে.

<sound>