আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের ডিরেক্টর – প্রশাসক ডোমিনিক স্ত্রস- কান আবারও ঘোষণা করেছেন যে, বিশ্ব অর্থনীতি সুস্থ হওয়ার পথে, কিন্তু একই সঙ্গে সমস্ত মুদ্রা তহবিলের সদস্য দেশকে বলেছেন, সঙ্কট পরবর্তী পরিকল্পনা রূপায়ণ শুরু করে না ফেলতে.

    আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাইটে তাঁর এই আহ্বানে স্ত্রস- কান বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, বিশ্বের অর্থনৈতিক উন্নয়নের যে মডেল গত কয়েক বছর ধরে চলে আসছিল, তা বর্তমানে তার "শেষ দিন" গুণছে. তিনি লিখেছেন — "আমি নিশ্চিত যে, পুরনো ধারণা মৃত অথবা আর দাঁড়াতেই পারছে না". তাঁর মতে অদূর অতীতে জীবনের লক্ষণ দেখানো বিশ্ব অর্থনীতির আগামী দিনে মূল প্রশ্ন হয়ে উঠবে নতুন সঙ্কট পরবর্তী কালের স্ট্র্যাটেজি নির্ধারণ করা. এই সঙ্কট থেকে বেরোতে হলে উন্নত দেশ গুলিকে খরচ কমাতে ও কর আদায়ের পরিমান বৃদ্ধি করতেই হবে.

    সাধারণতঃ নিজের মত সম্বন্ধে খুবই সাবধানে ভাষা প্রয়োগ কারী স্ত্রস- কান গত কয়েক দিনে বেশ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর ঘোষণা করেছেন. যেমন, এই এক সপ্তাহ আগে তিনি বিশ্বের সমাজকে খুব তাড়াতাড়ি এক মেরু দোষ দুষ্ট মুদ্রা নীতি পরিত্যাগ করতে বলেছিলেন, অর্থাত্ ডলার নির্ভরতা ত্যাগ করতে. অন্যথায় তাঁর মতে যদি এক বছরের মধ্যে বিশ্বের অর্থনীতি আবার সুস্থ হয়ে ওঠে, তবে আন্তর্জাতিক অর্থ বিনিময়ের নীতি বদলের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে আগ্রহ কমে যাবে.

    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা অনুসন্ধান ইনস্টিটিউটের উপ প্রধান অর্থনীতিবিদ ভিক্টর সুপিয়ান মনে করেছেন, ডলার থেকে বেরিয়ে আসাটা এখন একটু তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে. তিনি বলেছেনঃ

    "বিশেষত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অর্থনৈতিক উন্নয়নের সূচনা দেখতে পাওয়ার পর ডলারের পরিবর্তে অন্য কোন মুদ্রা বা আন্তর্জাতিক মুদ্রা ব্যবহারের কথা বলার প্রসঙ্গ উঠতেই পারে না. আমার মনে হয়েছে এই ধরনের কথা বলা এখন সময়ের চেয়ে আগেই হয়ে যাবে ও তা বাস্তবের সাথে মিলবে না. যদিও এই রকমের ধারণার কথা আগেও বলা হয়েছে. তাই আমার মনে হয়, এই রকম ভাবে প্রশ্ন উত্থাপন করায় কোন লাভ নেই. – ডলার একমাত্র বিনিময় যোগ্য মুদ্রা নয়. ইউরো, পাউণ্ড, ইয়েন, সুইজারল্যান্ডের ফ্রাঙ্ক সবই বিনিময় যোগ্য মুদ্রা. কিন্তু প্রত্যেক বিনিময় যোগ্য মুদ্রার নিজের কাজের জায়গা আছে, নিজস্ব বিশেষত্ব আছে আন্তর্জাতিক বাজারে বিনিময়ের ক্ষেত্রে. অবশ্যই বোঝা যায় যে, ডলার দিকে অনেক সময় ধরে একটানা যে পাল্লা ভারী অবস্থা, সেটা কোন কাজের কথা নয়, কারণ যেমন চীনের মুদ্রা ধীরে আন্তর্জাতিক বাজারে চালু হয়ে উঠছে. আমার মতে ডলারের প্রাধান্য কমতে এখনও অনেক দেরী. যদিও অদূর ভবিষ্যতে আমি সে রকম কোন সম্ভাবনা দেখতে পারছি না".

    স্ত্রস- কান আন্তর্জাতিক অর্থনীতিতে সব কিছু যেমন আছে, তেমনই রেখে দিতে চাইছেন, কারণ তিনি বুঝেছেন, বিশাল পরিমান ক্যাশ ডলার যা আজকের মার্কিন দেশের বাজারে রয়েছে, তা শীঘ্রই বিনিয়োগের বাজারে আরও একটি "সাবানের বুদ্বুদের" মত কাণ্ড ঘটাতে পারে. তাঁর আহ্বানের যুক্তি বুঝে বলা যেতে পারে যে, তিনি আশা করেছেন সময়ের সঙ্গে উপভোক্তার ব্যবহারের ও পরিবর্তন হবে. বেকারত্বের সমস্যার ভয়ে মানুষ খরচা কমিয়ে জমা করাতে বেশী মনোযোগ দেবে.