রাষ্ট্রসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি পরিষদ ইউনেস্কোর ইতিহাসে তিনটি প্রধান পদের একটিতে রাশিয়ার মহিলাকে নির্বাচিত করা হয়েছে, কথা হল এলেনোরা মিত্রোফানোভা কে নিয়ে. তিনি রাশিয়ার পক্ষ থেকে ইউনেস্কোর স্থায়ী প্রতিনিধি এবং এই সংস্থার প্রাক্তন উপ সাধারন সম্পাদক ও রাশিয়ার প্রথম উপ পররাষ্ট্র মন্ত্রী. তাঁর এই নির্বাচনের জন্য ইউনেস্কোর ৫৬টি দেশ ভোট দিয়েছে, কেউ বিরোধিতা করেন নি, শুধু দুই জন মত প্রকাশ করেন নি.

    ইউনেস্কোর কার্য নির্বাহী কমিটি বোর্ড অফ ডিরেক্টরস বা সরকারের কাজ করে থাকে. সাধারন সম্মেলন গুলির অন্তর্বর্তী সময়ে এই কমিটি কাজ করে.

     কার্য নির্বাহী কমিটির সদ্য নিযুক্ত প্রধান বলেছেন, তাঁর মনোযোগের মূল বিষয় হবে সবচেয়ে বড় করে সহিষ্ণুতা সম্বন্ধে প্রচার ও কাজ করা. এর মানে হল, মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা ও তার অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা, নানা সংস্কৃতি, মত ও ধর্মের মানুষের মধ্যে পারস্পরিক ভাবে শ্রদ্ধার সম্পর্ক গঠন ও হিংসার নিবৃত্তি. এই লক্ষ্য পূরণের জন্য সংবাদ মাধ্যমকে মিত্রোফানোভা সক্রিয় সহকর্মী রূপে চেয়েছেন. তিনি মনে করেন ইউনেস্কোর উচিত্ গুণগত ভাবে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্ক কে উন্নত করা. তাঁর মতে এর ফলে মানবিকতা, সহিষ্ণুতা ও সাংস্কৃতিক বিভিন্নতা সম্বন্ধে প্রচার করা সম্ভব হবে.

    উনি বলেছেন ইউনেস্কোর নূতন সাধারন সম্পাদক বুলগারিয়ার ইরিনা বোকভার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ভাল. বোকভা সেপ্টেম্বর মাসে এই পদে নির্বাচিত হয়েছেন. এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন রাশিয়ার উপ পররাষ্ট্র মন্ত্রী আলেকজান্ডার ইয়াকোভেঙ্কো.

    কার্য নির্বাহী কমিটির নূতন প্রধান তাঁর কাজ শুরু করতে চলেছেন খুবই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে, এই বিষয়ে আমাদের রেডিও স্টেশন কে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে এই সংস্থার সাধারন সম্পাদকের উপদেষ্টা গেনরিখ ইউশকিয়াভিচুস বলেছেনঃ

    "বর্তমানে ইউনেস্কোর সময় ভাল যাচ্ছে না, কারণ বিশ্ব জোড়া অর্থনৈতিক সঙ্কটের ফল এই সংস্থাও ভোগ করছে. কিন্তু অন্য দিক থেকে দেখলে এই সঙ্কট বিশ্বাসের সঙ্কট. আর বিচার করলে বিশ্বে শিক্ষা, যোগাযোগ, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি এই সমস্ত বিষয় যা নিয়ে ইউনেস্কোর কাজ, তার প্রতি দীর্ঘ সময়ের অবহেলার ফলই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে".

নূতন কার্য নির্বাহী কমিটির প্রধান খুবই নিশ্চিত যে তিনি তাঁর কাজে সফল হবেন. এলেনোরা মিত্রোফানোভা মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, আগামী বছরে বিশ্বে সাংস্কৃতিক নৈকট্যের বছর. রাশিয়া এই বছরে সক্রিয় ভাবে অংশ নেবে.খুব শীঘ্রই ইউনেস্কোর প্রধান দপ্তর প্যারিসে রাশিয়ার থেকে সরকারি যাদুঘরের তরফে কলমেনস্কোয়ে নামে এক বিরাট প্রদর্শনীর আয়োজন করা হচ্ছে. মে মাসে রাশিয়া ও ফ্রান্সের সঙ্গীতকারেরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের নিহতদের স্মৃতিতে এক সম্মিলিত কনসার্টের আয়োজন করেছে.