বিশ্বের অ্যাথলেটিকস্ মহলে প্রথমা, পোল ভল্টে দুটি অলিম্পিকের বিজয়িনী এলেনা ইসিনবায়েভা এবারে আস্ত্রুই রাজকুমারের নামে পুরস্কার পেলেন. স্পেনের ওভিয়েদো শহরে এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান হয়েছে. তাঁর অসামান্য রেকর্ড উচ্চতার পোলভল্ট এবং অনমনীয় প্রতিযোগী মনোভাবের জন্য এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে. তিনি একটি মূর্তি, স্মারক পত্র ছাড়া পেয়েছেন ৫০ হাজার ইউরো অর্থের চেক. এর মধ্যে দু বার অলিম্পিক বিজয়িনী বার্লিন শহরে আয়োজিত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশীপে পরাজয়ের পর আবারও নিজেকে অতিক্রম করতে পেরেছেন. তখন তিনি গত পাঁচ বছরের মধ্যে প্রথম বার হেরেছিলেন. কিন্তু তার দুই সপ্তাহ পরেই "সোনার লীগ" সিরিজের পঞ্চম অধ্যায়ে জ্যুরিখে নতুন বিশ্বরেকর্ড গড়লেন ৫ মিটার ৬ সেন্টিমিটার লাফিয়ে. এই পুরস্কারের জন্য তাঁর সঙ্গে আরও যাঁরা মনোনীত হয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে নিকটতমা প্রতিদ্বন্দ্বী স্পেনের মাঝারি পাল্লার দৌড়ে চ্যাম্পিয়ন প্রখ্যাতা মার্তু দোমিঙ্গেসের চেয়ে তিনি ২০ টি ভোট বেশী পেয়েছেন, মার্তু পেয়েছেন ৯ টি ভোট. স্পোর্টস প্রাইজ দেওয়া হয়ে থাকে সেই সব খেলোয়াড়দের যাঁরা নিজেকে অতিক্রম করার ক্ষমতা প্রদর্শন করে অনেকের জন্য নকল করার মতো উদাহরণে পরিণত হয়েছেন. ২৭টি বিশ্ব রেকর্ডের অধিকারিণী এই রাশিয়া তনয়া জুরিদের সর্ব সম্মতি ক্রমে তাঁর বিষয়ে সর্বকালের সেরা মহিলা খেলোয়াড় বলে বিবেচিত হয়েছেন.

    তাঁর গত বিশ্ব রেকর্ডটি তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতো, এটাকেই কি মানুষের নিজেকে অতিক্রম করার প্রকৃষ্ট তম উদাহরণ বলতে পারা যাবে না?  তাঁর সবচেয়ে নিকটবর্তী প্রতিদ্বন্দ্বীরা বর্তমানে তাঁর থেকে ৩০ সেন্টিমিটার কম উচ্চতা অবধি লাফাতে পেরে থাকেন. তাই রাশিয়ার এই মেয়ে প্রায় সব সময়ই নিজের নার্ভ দিয়ে উচ্চতার সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে. এটাই বেশীর ভাগ সময়ে সবচেয়ে কঠিন হয়ে দাঁড়ায়, ইসিনবায়েভা বলেছেনঃ

    "যদিও আমি আমার খেলার বিষয়ে প্রায় সবসময়ই অন্যদের চেয়ে এগিয়ে, তাও কখনোই ঢিলে দিতে পারি না. আমার প্রতিদ্বন্দ্বীরা খুবই কাছে, তারা অপেক্ষা করছে, কখন আমি ভুল করবো, আমি এটা টের পাই. আমার সঙ্গে ওদের ফলের তফাত বিরাট, তা স্বত্ত্বেও বার্লিনের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশীপে দেখা গেলঃ ভীষণ রকম আত্মবিশ্বাসের বাড়াবাড়ি আর তার সঙ্গে কিছু ঢিলে দেওয়ার মনোভাব – আর সঙ্গে সঙ্গেই শাস্তি পেতে হয়েছে".

         ইসিনবায়েভার কেন কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নেই, বিশেষজ্ঞরা তর্ক করে ক্লান্ত, কিন্তু সহমতে পৌঁছতে পারেন নি. সমস্ত ব্যাপার লুকিয়ে আছে লক্ষ্যে অবিচল থাকা আর ফল পাওয়ার জন্য প্রচেষ্টার মধ্যে, বলেছেন তিনি নিজেই. অনেক দিন আগে এই ভলগোগ্রাদের মেয়ে স্বপ্ন দেখত সম্পূর্ণ অন্য এক খেলায় অংশ নেওয়ার, সেটা ছিল আর্টিস্টিক জিমন্যাসটিকস, ফিতে আর স্টিক নিয়ে নাচ করার. স্কুলের নতুন ট্রেনার এসে অ্যাথলেটিকসের জন্য ছেলে মেয়ে দের খুঁজতে শুরু করেছিলেন. প্রথমে তার খানিকটা আগ্রহ হয়েছিল, কিন্তু কয়েকটা উচ্চতা পার করার পর ইচ্ছা হয়েছিল আরও অনেক উঁচু লাফ দিতে. ২৭ টা রেকর্ড এটা কোন শেষ কথা নয়. এলেনা মনে করেন, সামনে আরও অনেক উচ্চতা জয়ের বাকী, আরও অনেক পুরস্কার পাওয়া বাকী. এলেনার ট্রেনার ভাসিলি পেত্রভ বিশ্বাস করেন যে, তাঁর ছাত্রী ৫ মিটার ২৫ সেন্টিমিটার লাফানোর ক্ষমতা রাখেন, দরকার হল শুধু পরিশ্রম আর সহ্য শক্তি. এলেনা তাঁকে বিশ্বাস করেন.

    ইসিনবায়েভা শুধুমাত্র খেলার ক্ষেত্রেই অনুকরণীয় নন, তাঁর প্রতিটি মিনিটে কাজের আগে থেকে হিসেব করা থাকলেও তিনি ঠিকই সময় বার করে অনাথ বাচ্চাদের সাহায্য করে চলেছেন. তিনি বলেছেনঃ "আমি কোন স্পনসর নই, আমার কোন ভাল কাজের জন্য আলাদা করে ফান্ড নেই, যেই একটু সময় ফাঁকা পাই, আমি যে কোন একটা অনাথ আশ্রমে পৌঁছে যাই, সঙ্গে অবশ্যই বাচ্চাদের জন্য উপহার নিয়ে".

    "আমি বিভিন্ন অনাথ শিশু আশ্রমে যাই আর সেখানে গিয়ে সব সময় বাচ্চাদের বলি যে, তারা আমাকে তাদের নিজেদের ইচ্ছা জানিয়ে ছোট্ট চিঠি দিতে পারে. বাচ্চারা প্রায়ই আমাকে ছোট্ট সব চিঠি পাঠায়, তাতে লেখে, তাদের কি চাই. আমার ভাল লাগে কোন নির্দিষ্ট বাচ্চার জন্য কিছু একটা করতে, বাড়ী সারাবার জন্য পয়সা দিতে আমার কোন আগ্রহ নেই. এ কাজটা অন্য লোকেরা করতে পারেন, আর আমি বাচ্চার ইচ্ছা পূরণ করতে, তাদের আনন্দ দিতে চেষ্টা করি".

    খেলাধূলার সময় এ বছরের মতো শেষ, সমস্ত পুরস্কার বিতরণ শেষ, সামনের বছরে আরও নতুন সব প্রতিযোগিতার শুরু হবে, নতুন সব জয়ের খবর আসবে. ইসিনবায়েভা বলেছেনঃ "আমি চেষ্টা করবো ২০১৩ সাল অবধি বিশ্ব মানের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে. তাই আমার এখনও সময় আছে সবচেয়ে বেশী উচ্চতা অবধি লাফ দেওয়ার, যদিও আমি আগে থেকে কল্পনা করতে ভালবাসি না".