মস্কোর কাছ থেকে সামরিক ট্রানজিটের চুক্তি সম্বন্ধে সহমত পাওয়ার পর এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তালিবান বিরোধী যুদ্ধে সাহায্য চাইছে. জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটিতে আফগান পরিস্থিতি সম্বন্ধে খুঁটিয়ে বলার পর পেন্টাগনের প্রধান রবার্ট গেইটস উল্লেখ করেছেন যে, ঐসলামিক প্রজাতন্ত্রে পরিস্থিতি ভাল হতে পারে, যদি সেখানে বিদেশী সৈন্যের সংখ্যা বৃদ্ধি করা যায়. নিজের বক্তব্য রাখতে গিয়ে রবার্ট গেইটসের সহকারী আলেকজান্ডার ভেরশব্রোউ ঘোষণা করেছেন যে, রাশিয়া আফগানিস্থানের অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য বিনিয়োগ করতে পারে. তাঁর মতে এই সাহায্যের ফলে যুদ্ধ বিদীর্ণ দেশটিতে জীবন যাত্রার মান বাড়বে এবং সন্ত্রাসবাদীরা তাদের সামাজিক সমর্থন হারাবে.

আমেরিকার সামরিক সংস্থার উদ্বেগের কারণ বোধগম্য, আফগানিস্থানে পরিস্থিতি অত্যন্ত কঠিন, তার ওপরে ইউরোপের দেশ গুলি এই দেশের সীমানার ভিতর থেকে নিজেদের সৈন্যদল প্রত্যাহার করার কথা ভাবছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের সৈন্য সংখ্যা আর বাড়াতে পারছে না, কারণ তা এমনিতেই প্রায় ২০ হাজার বাড়ানো হয়েছে, আর আমেরিকার সমাজ এই বৃদ্ধি কে একই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছে না. মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার সামনে এখন কঠিন নির্বাচনের সময়, নিজের ভোটদাতাদের মত মেনে নেওয়া, নাকি নিজের সামরিক উপদেষ্টাদের কথা মেনে নিয়ে আরও ৪০ হাজার সৈন্য আফগানিস্থানে পাঠিয়ে দেওয়া.

মূলত মস্কো এমনিতেই কাবুলকে গুরুত্বপূর্ণ সাহায্য করে আসছে. যৌথ সামরিক বাহিনীর প্রয়োজনীয় রসদ এবং জনগণের জন্য মানবিক তাগিদে খাদ্য ও তৈজস পত্র সাহায্য. বোধহয়, মস্কো মার্কিন সামরিক সংস্থার উপপ্রধানের আহ্বানে বাড়তি বিনিয়োগের কথা শুনতে রাজী হতে পারে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা ইনস্টিটিউটের উপপ্রধান ভিক্টর ক্রেমেনিউকের মতে রাশিয়ার পক্ষে আফগানিস্থানকে আবার মেরামত করা লাভজনক, তাহলে এই দেশে মাদক উত্পাদনের দিকে অর্থনীতির ঝোঁক কমবে. রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাই যদি বিশাল মাদক স্রোত থেকে উদ্ধার পেতে চান, তাহলে তাঁর প্রয়োজন স্থিতিশীলতা. রাশিয়ার সরকার চায় আফগানিস্থানে স্বাভাবিক অবস্থা ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ফিরে আসুক. রাশিয়ার মতে সন্ত্রাসবাদীদের সমস্ত কু প্রচেষ্টা সত্ত্বেও আফগানিস্থানের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন প্রমাণ করেছে যে, দেশের জনতা চায় গণতান্ত্রিক পথে চলতে. এই নির্বাচনকে সমস্ত নির্বাচনের অংশগ্রহণ কারীরা মেনে নিয়েছে. রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের অবস্থান বোঝা যাচ্ছে সেই দেশের নির্বাচিত সরকারকে সমর্থনের মধ্যে. রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের সরকারি মুখপাত্র আন্দ্রেই নেস্তেরেঙ্কো বলেছেনঃ

"রাশিয়া এই সব প্রচেষ্টার মধ্যে নিজের দিক থেকে সাহায্য অব্যাহত রেখেছে, আমরা ঐসলামিক আফগানিস্থান প্রজাতন্ত্রকে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও মানবিক পরবর্তী কালেও সক্রিয় সমর্থন ও সাহায্য করার উদ্দেশ্য আবারও ঘোষণা করছি এবং একই সঙ্গে সন্ত্রাস বাদ ও মাদক দ্রব্য সংক্রান্ত অপরাধের বিরুদ্ধে সম্মিলিত বিরোধ ঘোষণা করছি".

একটি মাত্র বিষয়ে মস্কোর অবস্থান পাল্টায় নি, সেটা হল আফগান পরিস্থিতির সামরিক সমাধানের প্রতি মতের অমিল. রাশিয়া ন্যাটো জোটকে আফগানিস্থানে সন্ত্রাসবাদের মোকাবিলাতে সাহায্য করতে প্রস্তুত কিন্তু নিজের সৈন্য দল সেখানে পাঠাবে না. আজ ন্যাটো জোটের ও ওয়াশিংটনের সঙ্গে মস্কোর সহযোগিতার প্রমাণ রাশিয়ার ভিতর দিয়ে আফগানিস্থানে সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে মোকাবিলার জন্য সামরিক রসদ এবং অসামরিক যোগান সরবরাহ করার ব্যবস্থা. আর বিনিয়োগের বিষয়টি বিশেষ করে রাশিয়া ও আফগানিস্থান দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক সহযোগিতার চুক্তির অংশ.