ভারতের রাষ্ট্রপতি শ্রীমতী প্রতিভা পাতিলের সরকারি সফর রাশিয়ার সংবাদ মাধ্যমের কেন্দ্রীয় বিষয় হয়েছে. রাশিয়ার অন্যতম সংবাদপত্র ইজভেস্তিয়া তে ছাপা হওয়া তাঁর সফর সম্বন্ধে রিপোর্টে যে সব লেখা বেরিয়েছে দুই দেশের রাষ্ট্র প্রধান পর্যায়ের বৈঠক নিয়ে তা শ্রোতাদের জানাচ্ছি.

দুজন রাষ্ট্রপ্রধানের একটি বিষয়ে অত্যন্ত মিল আছে, তা হল তাঁরা দু জনেই হলেন আইন বিশেষজ্ঞ. ইজভেস্তিয়া সংবাদপত্রের সমীক্ষক সুজানা ফারিজোভা মনে করেন যে, বোধহয় এই পেশা গত কারণেই শ্রীমতী পাতিল তাঁর বিশেষ মনোযোগ দেখিয়েছেন মেদভেদেভের নিজের শহর সেন্ট পিটার্সবার্গ কে. রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময়ে শ্রীমতী প্রতিভা পাতিল আশ্বাস দিয়েছেন যে তিনি অবশ্যই সেন্ট পিটার্সবার্গের হারমিটেজ মিউজিয়াম ও পিটার গফ ভ্রমণে যাবেন.

সংবাদপত্রে উল্লেখ রয়েছে দুই পক্ষেরই একে অপরের সংস্কৃতির প্রতি স্বাভাবিক ভাবেই বিশেষ আগ্রহের কথা. সোভিয়েত মানুষের ও বর্তমানে রাশিয়ার মানুষের ভারতীয় সিনেমার প্রতি ভালবাসার কথা মনে রেখেই ভারতীয় চিত্র পরিচালকেরা রাশিয়ায় আয়োজিত সমস্ত ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সক্রিয় অংশ নিয়ে থাকেন.

সংস্কৃতির সম্পর্কেই এই সফর শুধু অবশ্য বাঁধা থাকছে না. দ্বিপাক্ষিক সাক্ষাত্কারের সময় রাষ্ট্রপতিরা যৌথ প্রকল্পের বিষয় গুলি নিয়েও আলোচনা করেছেন, এর মধ্যে কুদানকুলামের পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্র, খনিজ তেল উত্পাদন কেন্দ্র সাখালিন -১ এবং মহাকাশ গবেষণার সহযোগিতা রয়েছে. সামরিক প্রযুক্তি বিষয়টিও এই আলোচনার অন্যতম বিষয় হয়েছে এবং তা আরও চলবে. যদিও ভারতবর্ষ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে দূরে রেডিওলোকেশনের মাধ্যমে অনুসন্ধানের জন্য আটটি নতুন যুদ্ধ বিমান লাভ জনক ভাবে কিনেছে, তাও আগের মতই বর্তমানের ভারতীয় সামরিক বাহিনী প্রায় পুরোটাই সোভিয়েত ও পরবর্তী কালে রাশিয়ায় উত্পাদিত সামরিক প্রযুক্তিতে সংপৃক্ত. আর ভারত সরকার এখনও রাশিয়ার সামরিক শিল্প উত্পাদন কারখানা গুলির অন্যতম বড় ক্রেতা. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভারতে নিজেদের অবস্থান শক্ত করার চেষ্টা আমাদের কোন ভয়ের কথা নয়, বলেছেন রাশিয়ার পক্ষ থেকে সাক্ষাত্কারে অংশ গ্রহণ করা প্রতিনিধি দলের একজন ইজভেস্তিয়া কাগজের সাংবাদিককে. আমাদের ভারতকে প্রস্তাব করার মত বিষয় রয়েছে.

সাক্ষাত্কার শেষে সংবাদ মাধ্যমের জন্য দ্বিপাক্ষিক ঘোষণায় দুই দেশের নেতারা বলেছেন দ্রুত উন্নতিশীল সহযোগিতা নিয়ে. তখন রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলেছেনঃ "এমনকি বিশ্বের অর্থনৈতিক সঙ্কটের সময় আমাদের দুই দেশের আর্থিক লেন দেন লক্ষ্যনীয় উন্নতি করেছে, গত ১০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কঠিন এই বছরের প্রথম পাঁচ মাসে আমাদের দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক বিনিময় বেড়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ এবং এই বছরের এই টুকু সময়ের মধ্যেই তা আড়াই বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে. সমস্ত ভিত্তি আছেই তা বলার যে, আমরা আমাদের সামনে যৌথ বিনিময়ের ক্ষেত্রে যে ১০ বিলিয়ন ডলারের লক্ষ্য মাত্রা রেখেছি তা খুবই অল্প সময়ের মধ্যে সম্ভব হবে".

শ্রীমতী প্রতিভা পাতিল সর্বতোভাবে আলোচনায় উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়াকে ভারত নিজেদের বিশ্বাস যোগ্য সহযোগী দেশ হিসাবেই আজও জানে. ঐতিহ্য রক্ষা, বিশ্বাস ও পারস্পরিক বোঝাপড়া এই কথাই তিনি তাঁর বক্তব্যে  বেশী বার ব্যবহার করেছেন. তাঁর বক্তৃতার শেষে তিনি দুই দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায় কে যৌথ ভাবে কাজ করতে আহ্বান জানিয়েছেন. দুই দেশের ব্যক্তি মালিকানার ব্যবসা বিশেষ উদ্যোগ নিয়ে নেতৃত্ব দিলে যৌথ অর্থনৈতিক উন্নয়ন অনেক উঁচুতে উঠতে পারে বলে তিনি মনে করেন.

রাশিয়ার ব্যবসায়ীরা এই বছরের শেষের আগেই ভারতে যাবেন রাষ্ট্রপতির ডাকে সাড়া দিয়ে.

ইজভেস্তিয়া সংবাদপত্রের ছাপা হওয়া ভারতীয় রাষ্ট্রপতির রাশিয়া সফর সম্বন্ধে খবরের মূল বক্তব্য ছিল এটাই. (sound)