"রেডিও রাশিয়ার" ৮০ বছর পূর্ণ হতে চলেছে মনে করিয়ে দেওয়াতে বিখ্যাত "বিশ্বের চিকিত্সক" আখ্যা পাওয়া ডঃ লিওনিদ রশাল বলেছিলেন, "রেডিও রাশিয়া! তাই নাকি? আপনাদের রেডিও স্টেশনকে আমি শ্রদ্ধা করি, আমাকে অবশ্যই ফোন করবেন, আমার আপনাদের স্টেশন কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলার মত কথা জমা আছে".

    মস্কোর শিশু অস্ত্রোপচার ও আঘাত জনিত রোগ সম্বন্ধে বিজ্ঞান ও অনুসন্ধান কেন্দ্রের প্রধান ও রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির সমাজ সভার সদস্য এই ডঃ লিওনিদ রশাল "রেডিও রাশিয়ার" গত বিশ বছর ধরে ধারাবাহিক ভাবে প্রচারিত নানা অনুষ্ঠানের প্রধান চরিত্র. আমাদের রেডিও স্টেশন বহুবার শ্রোতাদের জানিয়েছে তাঁর চিকিত্সক দলের কথা, যাঁরা প্রাকৃতিক বিপর্যয়, শিল্প বিপর্যয় ও সামরিক আক্রমণের পর নানা জায়গায় কাজ করেছেন. উফা শহরের কাছে রেল গাড়ী ভেঙে পড়ার পর, উস্ত কামেনাগোরস্কে কারখানা বিস্ফোরণের পর তাঁদের দেখতে পাওয়া গিয়েছিল. তাঁরা কাজ করেছেন, যুদ্ধ বিদ্ধস্ত যুগোস্লাভিয়া, আবখাজিয়া, জর্জিয়া, আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজানে, ইজরায়েলে এবং চিচনিয়াতে. প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পর রুমানিয়াতে, ইজিপ্টে, জাপানে, ক্যালিফোর্নিয়াতে এবং ভারতে, আফগানিস্থানে ও তুরস্ক তে. ২০০৫ সালে পাকিস্থানের ভূমিকম্পের পর অনেক শিশু নিহত হয়েছিল, রাশিয়ার ডাক্তার দের তাঁবুর বাইরে ছিল প্রচুর বাচ্চার দিগন্ত অবধি ভীড়. এমন কি তখনও যাতে পৃথিবী সত্য ঘটনা জানতে পারে, ডঃ লিওনিদ রশাল তাঁর অপারেশনের টেবিল থেকে কিছু সময় বার করে নিয়ে "রেডিও রাশিয়া" কে সাক্ষাত্কার দিয়েছিলেন. আমাদের রেডিও কে "বিশ্বের চিকিত্সক" ডঃ রশালের বিশ্বাসের প্রমাণ এই ঘটনা, যা আজ তিনি আমাদের রেডিও কে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে বলেছেন.

    আমি বলতে পারি না যে, বিশ্বের অন্যান্য দেশের সংবাদ পত্র, রেডিও ও টেলিভিশন বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে রাশিয়াকে ভালবাসে. প্রায় সময়েই শুনতে পাওয়া যায় অনেক নেতিবাচক কথা. কখনো সে গুলি সত্য প্রমাণিত হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মিথ্যা. আমার জন্য সবচেয়ে প্রামাণ্য ঘটনা ছিল, দক্ষিণ অসেতিয়া সম্বন্ধে বিশ্বের সংবাদ সংস্থা গুলির রিপোর্ট, পশ্চিমের বেশীর ভাগ সংস্থাই মিথ্যা প্রচার করছিল. আমি বলব না যে, আমাদের সংস্থারা সব সময় সত্য বলে, কিন্তু আমি খুশী যে, আমাদের "রেডিও রাশিয়া" রয়েছে, তার সমস্ত ভাল ও সমস্যার দিক গুলি নিয়ে. "রেডিও রাশিয়া" যেন দেশের কন্ঠস্বর হয়, যে বিশ্ব জোড়া এত লোকের রাশিয়ার প্রতি বিরুদ্ধতার মধ্যে রাশিয়ার সমস্যার মূল কথাটি শ্রোতাদের কানে পৌঁছে দিতে পারে. তার সঙ্গে বিশ্বের সমস্যার সম্বন্ধে রাশিয়ার মত ও জানাতে পারে. আমি জানি আপনাদের রেডিও স্টেশনের জীবনে অনেক সমস্যা, কষ্ট করে বেঁচে থাকতে হচ্ছে. কিন্তু আমি চাই যে, পৃথিবী যেন "রেডিও রাশিয়া" কে বিশ্বাস করে. আমাদের জন্য এটা খুবই জরুরী.

    রেডিও কোম্পানী কে জানাই আরও উন্নতি হোক, চাই বিশ্বের প্রতিটি কোণে রাশিয়া শব্দ টি শোনা যাক, যাতে বিশ্বের মানব সমাজ ভাল, খোলা মেলা ও সত্য সংবাদ শুনতে পায়. আপনাদের সব ভাল হোক.

    এই কথা গুলি ডঃ লিওনিদ মিখাইলোভিচ বলেছেন তাড়াহুড়ো না করে. উনি অনেক বার নিজেই বলতে গিয়ে থেমেছেন, যেন কি একটা দরকারি কথা বলতে গিয়ে ভুলে যাচ্ছেন. বলেছেন কথা ও কাজ সম্বন্ধে, এই দুটিতে কত বেশী মিল থাকা দরকার তা নিয়ে.

<audio>