রাশিয়ার আগামী ২০১০ সালের বাজেটকে রাশিয়ার ইতিহাসের সর্বাপেক্ষা গ্রহনযোগ্য বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও বাজেট বিশারদরা.গত সপ্তাহে মন্ত্রীপরিষদের ত্রক বৈঠকে বাজেট সংক্রান্ত আলোচনায় ত্রমনই মন্তব্য করেছেন তারা.
আলোচনা যে বিষয়টি উঠে আসে তা হল আগামী বছরের বাজেটে ঘাটতি থাকবে.৪২ ত্রিলিয়ন রুবলের বাজেটে প্রায় তিন ত্রিলিয়ন রুবল ঘাটতি দেখানো হয়েছে.ত্রছাড়া বাজেটে বয়স্ক ভাতা বৃদ্ধি প্রকল্পের জন্য আলাদা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে.আগামী বছরে রাশিয়ার বয়স্ক ভাতা শতকরা ৪৫ ভাগ বৃদ্ধি পাবে যার পরিমান হবে ৮০০০ রুবল. চলতি সপ্তাহেই সরকারের ত্রক সিদ্ধান্তে এ কথা জানানো হয়.
অন্যদিকে বিশেষজ্ঞরা ধারনা করছেন যে সরকারের উচিত হবে সামাজিক উন্নয়ন খাতে খরচ কমিয়ে দেয়া. আর তা যদি না করা হয় তাহলে বাজাটে অসম ঘাটতি সৃষ্টি হবে.
আবার অন্য ত্রক বিশেষজ্ঞ দল ত্রকমত পোশন করছে যে, রাশিয়ার সরকার ব্যাবস্থা বর্তমানে সঠিকভাবেই ত্রগিয়া যাচ্ছে.তার কারন হিসেবে তারা বলেন, প্রখমত-সরকারি খরচ সকল খাতে বৃদ্ধি করা হয়নি.ত্রমনকি কিছুকিছু খাতে তা আরও কমিয়েও আনা হয়েছে.দ্বিতীয়ত-অর্থনেতিক মন্দার কারনে সামাজিক চাহিদাকে বৃদ্ধি দেয়া অত্যন্ত ফলপ্রসূ হবে.ত্রমনই মন্তব্য করেন রাশিয়ার শিল্প ও মালিক ইউনিয়নের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইগর ইউরগেন্স.
তিনি বলেন-সামাজিক উন্নয়ন খাতে বেশী বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে.সরকার প্রথমত সাধারন জনগনের চাহিদাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন.ত্রবং অর্থনৈতিক মন্দা থেকে উত্তরনের দন্য আলাদা করে কোন বরাদ্ব দেয়া হয়নি,উপরন্তু ঐ অর্থ জনগনের জীবন যাত্রা উন্নয়নে ব্যয় করা হবে.আর ত্রই রকম দৃষ্টান্ত রয়েছে পৃথিবীর বহু দেশে.
তিনি আরও বলেন, রাশিয়ার ইতিহাসে ত্রটাই প্রথম কোন বাজেট যেখানে সামাজিক উন্নয়ন খাতে শতকরা ৪০ ভাগ বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে.আর পৃথিবীর যেসকল দেশ উন্নয়নশীল তালিকায় রয়েছে তাদের পক্ষে শতকরা ৩০ ভাগ যদি সামাজিক উন্নয়ন খাতে বরাদ্ধ দেয়া হয় তবেই তাদের পক্ষে সম্ভব হবে সাফল্য অর্জন বললেন রাশিয়ার শিল্প ও মালিক ইউনিয়নের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইগর ইউরগেন্স.

<sound>