চীনে রাশিয়া ও চীনের সৈন্যবাহিনীর অনুশীলন "শান্তির মিশন – ২০০৯" এর সক্রিয় অংশ শুরু হয়েছে. প্রায় তিন হাজার সৈন্য এই অনুশীলনে অংশ নিয়েছে. সন্ত্রাসবাদীদের দমনে সম্মিলিত ভাবে অংশগ্রহনের অনুশীলনই এর উদ্দেশ্য. সাজানো প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সামরিক বাহিনীর সমস্ত রকমের অস্ত্রেরই ব্যবহার করা হবে যেমন, আক্রমণাত্মক বিমান বাহিনী, সাঁজোয়া গাড়ী ও কামান. নিজেদের কৌশল প্রদর্শন করবে রাশিয়া ও চীনের পদাতিক বাহিনীর সব থেকে কুশলী স্পেশাল টাস্ক ফোর্স. প্রতিপক্ষের ধ্বংসের পর সৈন্যরা ফিল্ড ক্যাম্পে বিশ্রাম করবে. অনুশীলনের বাইরের সময়ে রাশিয়া ও চীনের সৈন্যরা ফুটবল খেলবে, দাবা খেলার প্রতিযোগিতা এবং একে অপরের ভাষা শিক্ষা করবে. ২৬ শে জুলাই এই প্রশিক্ষণ শেষ হবে. সামরিক বাহিনীর কর্তাদের কথামত এই ধরনের অনুশীলন অদূর ভবিষ্যতেও আবার করা হবে.