বর্তমান জগতের পরিবেশের সাথে মানিয়ে নেওয়ার পথ এবং জোট নিরপেক্ষতা আন্দোলনের রাজনৈতিক গুরুত্ব বৃদ্ধি – এ সংস্থার ১৫শ শীর্ষ বৈঠকের মনোযোগের কেন্দ্রস্থলে রয়েছে. এ শীর্ষ বৈঠক আজ শুরু হয়েছে মিশরে, লোহিত সাগরের স্বাস্থ্যনগরী শার্ম-এশ-শেখে. দুদিন ব্যাপী এ বৈঠকে অংশগ্রহণ করছে ১৪০টিরও বেশি দেশের প্রতিনিধি দল, আর তার মধ্যে ৬৫টি দেশের প্রতিনিধিত্ব রয়েছে রাষ্ট্র ও সরকারের নেতাদের পর্যায়ে. সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, এ শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে শান্তি ও বিকাশের নামে আন্তর্জাতিক সংহতি স্লোগানে. আলোচ্য সূচিতে প্রাধান্যমূলক স্থান অধিকার করেছে অর্থনীতি সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি. এর মধ্যে আছে- বিশ্বব্যাপী সঙ্কটের কুপরিণতি অতিক্রম, আর্থিক সংস্থাগুলির পুনর্বিন্যাস সাধন এবং উন্নয়ণশীল দেশগুলির স্থিতিশীল বিকাশ সুনিশ্চিত করা. তাছাড়া, সব পক্ষ আলোচনা করবে পারমাণবিক অস্ত্র প্রসার নিরোধ এবং আঞ্চলিক সঙ্ঘর্ষ মীমাংসা. আশা করা হচ্ছে যে, শার্ম-এশ-শেখ তাছাড়া পাকিস্তানী প্রধান মন্ত্রী ইউসুফ রজা গিলানি এবং ভারতের প্রধান মন্ত্রী মনমোহন সিং-এর আপোষমূলক সাক্ষাতের স্থান হয়ে উঠবে.