সংশোধন বাদী আন্দোলনের নেতা মুসাভি আইন শৃঙ্খলা ভাঙাতে জনতাকে উত্তেজিত করার কারণে গ্রেপ্তার হতে পারেন. ইরানের পার্লামেন্ট মনে করে যে, এই লিবারেল রাজনৈতিক নেতাকে তেহরানে গণ শৃঙ্খলা ভঙ্গে জনতাকে উদ্বুদ্ধ করার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা যেতেই পারে. মুসাভি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে নিজের হার স্বীকার করতে রাজী না হয়ে, চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সরকারকে এই ভোটের ফলাফলের পূণর্মূল্যায়নে বাধ্য করতে. রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ফল নাকচ করার প্রতিবাদী পক্ষের দাবী ইরানের পর্যবেক্ষক পরিষদ মানে নি. কিন্তু হেরে যাওয়া প্রার্থী দের অভিযোগ পরিষদ খতিয়ে দেখা হবে ও ২৫ শে জুনের আগেই পরিষদের সিদ্ধান্ত জানানো হবে. এর মধ্যে গণ শৃঙ্খলা ভঙ্গে কয়েকজনের মৃত্যু হয়েছে. বিভিন্ন উত্স থেকে পাওয়া খবরে জানা গেছে যে, এই মারামারির ফলে এখন অবধি ১৩ থেকে ২০ জন নিহত হয়েছেন এবং প্রায় ১০০ জন আহত হয়েছেন, এছাড়াও গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪৫০ জনের বেশী লোককে. রাষ্ট্রসংঘের মহা সচিব বান কী মুন ইরানের রাজনৈতিক শক্তি দের হিংসার পথ পরিহার করতে আহ্বান করেছেন.