রাশিয়া ও রাজ তান্ত্রিক নেদারল্যান্ডসের সম্পর্ক খুব গভীর ভাবে বিকাশিত হচ্ছে. এর প্রমান হচ্ছে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভের নেদারল্যান্ডসে দু দিনের সরকারী সফর. এ বিষয়ে আমাদের বিশেষ কর্সপান্ডেন্ট ইলেনা স্তুদনেভা নেদারল্যান্ডসের রাজধানী আমস্ট্রাডাম হতে সংক্ষিপ্ত বর্ননায়.
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ হল্যান্ডের শহর হেগে হতে তার সফর শুরু করেন. এ নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হেগে তিন বার আসা হলো. হেগেতে সরকার, পার্লামেন্ট, কুটনৈতিক অফিস ও নেদারল্যান্ডসের রানী বিয়াট্রিকস এর বাসস্হান. রানী আন্তরিকভাবে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ও তার স্ত্রী সিবেতলানা মেদভেদেভকে গ্রহন করেন. তাদের গ্রহনে সেরকম ফরমালিটি দেখা যায় নি, রানী বিয়াট্রিকস রাশিয়ার বংশোদ্ভোভ জার পিটার প্রথমের পর নাত্নী. এ জন্যই রানী বিয়াট্রিকস রাশিয়ার ব্যাপারে বেশী আগ্রহ প্রকাশ করেন, যখন হলান্ডের সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিষয়ে আলোচনা হয়.
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভের সাথে রানী বিয়াট্রিকস আমস্ট্রাডামে – এরমিতাজ আমস্তেলে- আনুষ্ঠানিক ওপেনিং অংশ গ্রহন করেন. আমস্তেল- এটা একটি নদী নেদারল্যান্ডসের রাজধানী ঘিরে আবহমান. ১৭ শতাব্দির অনুকরনে তৈরী বাড়ীগুলি দাড়িয়ে আছে নদীর তীরে. এই মিউজিয়ামে রাশিয়া হতে আগত এক্সপজিশনে সাজানো হবে. এরমিতাজ উদ্ভোধন উপলক্ষে আনচলিক সরকার উত্সবের আয়োজন করেছে.
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভের সফরের দ্বিতীয় দিনে নেদারল্যান্ডের প্রধান মন্ত্রী ইয়ান পিটার বালকেন্দের সাথে স্বাক্ষাত করবেন. দু নেতা সেখানে দ্বিপাক্ষিক বানিজ্যিক-অর্থনৈতিক ও বিনিয়োগ সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করবেন. ২০০৭ সালের তুলনায় ২০০৮ সালে দু দেশের পন্যদ্রব্যের আমদানি-রপ্তানী এক-তৃতীয়াংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৬১.৮ বিলিয়ন ডলারে পৌছেছে. নেদারল্যান্ডস রাশিয়ার সাথে বানিজ্যে দ্বিতীয় স্হানে অবস্হান করছে জার্মানীর পর. রাশিয়ার সাথে তাদের বানিজ্যিক আদান-প্রদান চীন, ইতালি, জাপান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় বেশী. নেদারল্যান্ডসের বিনিয়োগ রাশিয়ায় বিশ্বের দ্বিতীয় স্হানে, যার পরিমান ৪৬.৩ বিলিয়ন ডলার.
জ্বালানী ক্ষেজ্ত্রে দু দেশের অগ্রধিকারমুলক সহযোগিতা রয়েছে রাশিয়ার গ্যাসপ্রম ও নেদারল্যান্ডস কনসার্ন গ্যাস-ইউনির মধ্যে. নেদারল্যান্ডস উত্তর –ইউরোপীয় গ্যাস পাইপ লাইন নিরমানে বিনিয়োগে অংশগ্রহন করছে, যা বাল্টিকের মধ্যে দিয়ে তৈরী হবে. এ পাইপ লাইনের মাধ্যেম রাশিয়ার গ্যাস পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলিতে সরবরাহ হবে. গ্যাস সরবরাহের সহযোগিতায় উভয় পক্ষ্য আরো বেশী যোগাযোগ বৃদ্ধি কৃষি শিল্পে, আইন শৃংখলা আন্তমহাদেশীয় অপরাধ প্রবনতা, সন্ত্রাসদমন, মাদক দ্রব্যের চালান প্রতিরোধ, অস্র চোরাচালান বন্ধে পরস্পর সহযোগিতা বিষয়ে আলোচনা হবে.
আশা করা হচ্ছে উভয় নেতা রাশিয়া ও ই.উ সম্পর্ক বিষয়ে আলোচনা হবে. এছাড়াও আন্তর্জাতিক অপরাধ ও অপরাধী বিষয়ে একে অপরকে তথ্য আদান প্রদান করবে.