আর্জেন্টিনার সরকার প্রথম H1N1 ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগীর ভর্তি হওয়ার কথা ঘোষণা করেছে. জনৈক ব্যক্তি কিছু দিন আগে মেক্সিকো থেকে ফিরে আসার পর তার এই রোগ ধরা পড়েছে বলে সেই দেশের স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে. মেক্সিকোতে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ১০০০ এরও বেশী নাগরিক এবং মারা গিয়েছেন ৪২ জন. বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্টে জানানো হয়েছে যে, পৃথিবীতে বর্তমানে ২৩ টি দেশে মোট ২১০০ টি এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা নথিকৃত হয়েছে. মনে পড়ে যে, গত শতাব্দীর শুরুতে ইস্পানকানামে রোগটি একই গতিতে ছড়িয়ে পড়ে ২ কোটি লোকের মৃত্যুর কারণ হয়েছিল. অবশ্যই এখন সেই সময়ের তুলনায় চিকিত্সা বিজ্ঞানের ও মানব সভ্যতার মিলিত শক্তি মহামারী প্রতিরোধের ক্ষেত্রে অনেক এগিয়ে গেছে. রাশিয়াতে কেন্দ্রীয় মহামারী বিজ্ঞান ও গবেষণা সংস্থা প্রথম একটি পরীক্ষামূলক টেস্ট সিস্টেম বার করতে পেরেছে যা দ্রুত ও ১০০ ভাগ নিখুঁত ভাবে রক্তে H1N1 ইনফ্লুয়েঞ্জার উপস্থিতি জানিয়ে দিতে পারবে, এই টেস্ট সিস্টেমটি বর্তমানে প্রচুর সংখ্যায় বানানো হচ্ছে, যদিও এখনও অবধি এই রোগে কেউ রাশিয়াতে আক্রান্ত হননি. বিমানবন্দর ও সীমান্ত এলাকায় স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রহরা বাড়ানো হয়েছে ও বেশ কিছু দেশ থেকে শূয়োরের মাংসের আমদানি বন্ধ রাখা হয়েছে.