আজ যৌথ নিরাপত্তা চুক্তির ১৫ বছর পূর্ন হয়েছে. পরে তা রুপান্তরিত হয় যৌথ নিরাপত্তা চুক্তির আন্তর্জাতিক সংস্থায়. এতে অন্তরভুক্ত ৭টি দেশ- আর্মেনিয়া, বেলারুশিয়া, কাজাখস্থান, কিরগিজিয়া, রাশিয়া, তাজিকিস্থান ও উজবেকিস্থান. এ বছরের গোড়ায় এ সংস্থার নেতাদের জরুরী শীর্ষ সাক্ষাতে তত্পর প্রতিক্রিয়ার যৌথ বাহিনী গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়. এ বাহিনী স্থায়ী ভিত্তিতে অবস্থিত রাশিয়ার ভূভাগে. অনুমান করা হচ্ছে যে এ বাহিনী ব্যাবহৃত হবে সামরিক আক্রমন প্রতিহত করার জন্য. আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ ও চরম পন্থার বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য. সুসংবদ্ধ অপরাধপ্রবনতা এবং নার্কোটিকের চোরাচালানের বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য. এ সংস্থার ফেব্রুয়ারী মাসের শীর্ষ সাক্ষাতে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেন যে রাশিয়া এবং এ সংস্থার অন্যান্য দেশ আফগানিস্তানে এবং পাকিস্তানে এ অন্চলে সন্ত্রাসবাদের বিরোধীতার ব্যাপারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য রাষ্ট্রের সংগে পূর্ন পরিসরের সরবাত্বক সমবায়ের জন্য প্রস্তুত.