0রেডিকেল গ্রুপগুলির চাপ প্রয়োগ সত্ত্বেও পাকিস্তান প্রথমবারের মত স্বীকার করল যে গত বছরের নভেম্বরে ভারতের মুম্বাই শহরে আগ্রাসী হামলার সন্ত্রাসীদের প্রস্তুতি তাদের টেরিটোরি হতেও পারে.গত ১২ই ফেব্রুয়ারীতে ইসলামাবাদে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মালিক রেহমান এক সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেন. এ বিষয়ে আমাদের পর্যবেক্ষক জর্জ বানেসবের বর্ননায়- পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে জানা যায় মুম্বাই হামলার পরিকল্পনাকারীসহ ৫ জন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে. অন্য দুইজনকে গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে. মুম্বাই হামলার প্রস্তুতি পরিকল্পনা পাকিস্তানের কিছু অংশে করা হয়েছে. তদন্তের প্রাথমিক অবস্থায় তা ধরা পড়েছে বলে জানিয়েছেন রেহমান মালিক.


0পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ বক্তব্যে পাকিস্তান তার পূর্বের অবস্থান থেকে অনেকটা সরে এলেন এবং ভারত এই স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য ভালভাবেই দেখছেন. ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন এটা সম্পর্ক উন্নয়নের পজিটিভ সাইন. ভারত আশা প্রকাশ করে যে ইসলামাবাদ এখানে থেমে থাকবে না . ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয় জানিয়েছে ভারত আশা প্রকাশ করে পাকিস্তান সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক বন্ধের জন্য এখনই পদক্ষেপ গ্রহন করবে পাকিস্তানের ভূমি থেকে. যদি তাই করে তাহলে ভারত পাকিস্তানের জন্য সম্মেলিত শক্তিতে সন্ত্রাসবাদী এবং সন্ত্রাসী হুমকি দমনে সহজ হবে. এবং তাতে দক্ষিন এশিয়ায় ভারত পাকিস্তান সম্পর্ক শক্তিশালী হবে. তবে এটা তারা চাইবে না যারা মুম্বাইএ সন্ত্রাসী হামলা ঘটানর জন্য পরিকল্পনা ও অর্থায়ন করেছে. যারা ভারত পাকিস্তানের অপরাধ তদন্তের দাড়গতি সৃষ্টি করেছে এবং যারা দুদেশের সহযোগিতায় সন্ত্রাস দমনের কার্যক্রমে বাধার সৃষ্টি করছে. পাকিস্তানের স্বরাষ্টমন্ত্রীর বক্তব্য এবং ইসলামাবাদের মুম্বাই হামলার পরিকল্পনার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ- এ বিষয়ে প্রাশ্চত্ত্ববিদ্যা ইন্সটিটিটের ভারত গবেষনা কেন্দ্রের প্রধান তাপিয়ানস শাওমিয়ানস বলেন- এসব কিছুই মুল্যায়ন করতে হয় যে পাকিস্তানের নেতৃবৃন্দের রাজনৈতিক ধনাত্বক দিকে পরিচালিত হচ্ছে মুম্বাই ঘটনার দায়িত্ব স্বীকারে. অবশ্যই তাদের জন্য এটা স্বীকার করা খুব কঠিন কাজ ছিল. এই জন্য আমি মনে করি এটা পজিটিভ মুভমেন্ট. যদি বলতে হয় যে ভারত পাকিস্তানের ভবিষ্যত সম্পর্ক বিষয়ে তাহলে বলব আমার মনে হয় তা শীঘ্রই সাধারন পর্যায়ে চলে আসবে. আর তাতে ভারত পাকিস্তানের শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরু হবার সম্ভাবনা রয়েছে. এবং নির্দিষ্ট সমস্যার বিষয়ে আলোচনা যাদের প্রধানই হল সম্মেলিতভাবে সন্ত্রাস দমন.