0গত বুধবার রাশিয়ায় উদযাপিত হয়েছে সন্ত্রাস বাদের বিরুদ্ধে সংহতি দিবস. গত ৩রা সেপ্টেম্বর উত্তর অসেটিয় বেসলান শহরের ১নং স্কুলের ট্রাজেডির কথা স্মরন করে এই দিনটি উদযাপিত হয়েছে. ২০০৪ সালের ১লা সেপ্টেম্বারে স্কুলে শিক্ষা বর্ষের প্রথম দিনে অনুষ্ঠান চলাকালে স্বস্ত্র সন্ত্রাসবাদিরা স্কুলটি দখল করে নেয়. সেদিন স্কুলে প্রায় ১২০০জন মানুষ ছিল. তাদের মধ্যে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী, পিতামাতা ও শিক্ষক- শিক্ষিকাগন ছিল. এই ১২০০জন মানুষ তিনদিন পর্যন্ত সন্ত্রাসীদের হাতে বন্দি অবস্থায় থাকে সপুটস হলে বোমা বিস্ফোরনের পূর্ব পর্যন্ত. এই বিস্ফোরনে ৩৩৪টি জীবন চলে যায় যাদের মধ্যে ১৮৬জন শিশু কিশোর.


0গত বুধবার মস্কো সময় ১টা ৫মিনিটে যখন ২০০৪ সালের ১সেপ্টেম্বর স্পুটস হলে প্রথম বিস্ফোরনে প্রথম শিশুটি মারা যায় তাদের স্মরনে পুরো উত্তর অসেটিয়া ১মিনিটের জন্য নিস্তবদ্ধ হয়ে যায়. ১মিনিট মৌনতার পর ৩৩৪জনকে স্মরন করে ৩৩৪টি বিভিন্ন রংএর বেলুন উড়ান হয়. এর পর স্মৃতিময় কবর স্থানে যেখানে ৩৩৪জনকে কবর দেয়া হয়েছিল ট্রাজেডিপূর্ন মিউজিকে তাদের নাম উচ্চারন করা হয়.


0৩রা সেপ্টেম্বর স্মরনীয় ট্রাজেডি ঘটনার স্মরনে রাশিয়ার বিভিন্ন শহরে এদিনটি উদযাপিত হয়. সেন্টপিটার্সবার্গ, একেটেরিনবুর্গ, সারাতোভ এ শতশত মোমবাতি জালিয়ে এবং খাবারোভে কবুতর উড়িয়ে এদিনটি স্মরন করে. মস্কোতে কেন্দ্রিয় প্রসাষন ও অসেটিয়বাসী রাশিয়ার সন্ত্রাস বিরোধী বিশেষ বাহিনী আলফা সে সময়ে বিস্ফোরনে মৃত বাহিনীর কবরস্থানে পুস্পার্পন ও গিম বাজায়. এই বিশেষ বাহিনী সেদিন স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীদের রক্ষার জন্য নিজেদের প্রান বিসর্জন করেন.


0সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংহতি দিবসটি শুধু বিসলানের ট্রাজেডি ঘটনার মধ্যে সিমাবদ্ধ ছিলনা-সন্ত্রাসী হামলায় গুরিয়ানোভ ও কাসিরস্কা রাস্তায় বিস্ফোরনে জনবহুল মাল্টিস্টুরেড বিল্ডিং ধ্বংসে নিহতদের স্মরনে এবং মস্কো আন্ডারগ্রাউন্ড ট্রান্সপোর্টে বোমা বিস্ফোরনে নিহতদের স্মরনে শোকসভা করা হয়. মস্কোতে কয়েক শত যুবক দুবরোভ করে থিয়েটার সেন্টারে আসে যেখানে ২০০২ সালের অক্টোবরে চেচনিয়ার সন্ত্রাসীরা নর্ড ওকস্ট মিউজিক্যাল আর্টিষ্ট ও দর্শকদের বন্দি করে এবং সেখানেও নিহতদের স্মরনে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়. স্মরন করছি রাশিয়ার বিভিন্ন সময়ে সন্ত্রাসী হামলায় কয়েক হাজার জনগনের জীবন চলে যায়. সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংহতি দিবসে আমরা সকল নিহত ও আহতদের স্মরন করতে চাই, বল্লেন স্কুল ছাত্র দমিত্রি স্মিরনোভ.


0আমি এখানে এসেছি আমাদের শহরের জনগন যারা সন্ত্রসী হামলায় নিহত হয়েছে তাদের স্মরন করতে. আমাদের স্মৃতিতে তারা এখোন জীবিত. সন্ত্রাসী আক্রমন এটা ছিল বড় ধরনের ভূল. তাই আমরা সবাই সম্মেলিতভাবে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাব. সবাইকে এক হতে হবে যাতে পরবর্তী ট্রাজেডি থেকে রক্ষা পেতে পারি.


0বর্তমান সময়ে অগোসিত তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলবে আর এটা হচ্ছে সন্ত্রাসবাদী যুদ্ধ. মানব ইতিহাসে এ ধরনের হুমকি একের প্রতি অন্যের কখোন আসেনি জানালেন সুপরিচিত শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ লিউনিদ রসাল, যিনি বিসলান, ধুবরবকা এবং বর্তমানে দক্ষিন অসেটিয় জর্জিয়ার আগ্রাসী হামলায় আহত শিশুদের চিকিত্সা সাহায্যে রয়েছেন.


0অনেক বিদ্ধংসী যুদ্ধ দেখেছি কিন্তু যখন নিরাপরাধ শান্তিপ্রিয় জনগন ও শিশু কিশোরদের হত্যা করা হয় তাকেই আমি বলি সন্ত্রাসবাদ. সকল সভ্য দেশ এক হয়ে সম্মিলিতভাবে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করা উচিত.